প্রকাশ : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০১:১৫:৩৯
প্রজনন মৌসুমে সুন্দরবনে শিকার নিষিদ্ধ কাঁকড়া আহরনে মহোৎসব
বাংলাদেশ বাণী, বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের নদী ও খালে শিকার নিষিদ্ধ প্রজনন মৌসুমের শেষ ভাগে এসে এবার নির্বিচারে রপ্তানী পন্য শিলা কাঁকড়া আহরনের মহোৎসব শুরু হয়েছে। প্রজনন মৌসুমে শিলা কাঁকড়া আহরনে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও বনবিভাগের কতিপয় অসৎ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সহায়তায় বিশ্ব বাজারে সুন্দরবনের ডিমওয়ালা শিলা কাঁকড়ার উচ্চ মূল্য ও ব্যপক চাহিদার সুযোগে জেলেরা শিলা কাঁকড়া আহরন করে চলেছে। কাকঁড়া আহরন বন্ধে প্রচারণা না থাকা এবং জেলে ও শিকারীদের অতিলোভের কারনে প্রজননের ভরা মৌসুমে কাঁকড়া শিকারের ফলে এবার সুন্দরবন থেকে শিলাসহ অন্যসব প্রজাতির কাঁকড়া বিলুপ্তির আশংঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন পরিবেশবিদরা।

পূর্ব সুন্দরবনের প্রায় সারা বছরই মংলা, রামপাল, শরনখোলা, মোড়েলগঞ্জ, দাকোপ, কয়রাসহ সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার বিপুল সংখ্যক বনজীবী সুন্দরবনে শিলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির কাঁকড়া ধরে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। এসব বনজীবীরা সরকারি রাজস্ব দিয়ে বনবিভাগের কাছ থেকে বৈধ পারমিট নিয়ে সুন্দবনের কাঁকড়া ধরেন। তবে, প্রতি বছর জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি এই দু’মাস কাঁকড়ার ভরা প্রজনন মৌসুম হওয়ায় এ সময় বন বিভাগ কাঁকড়ার বংশ বিস্তারে জন্য আহরণ সম্পূর্ন নিষিদ্ধ ঘোষনা করে। তবে প্রজনন মৌসুমে সুন্দরবনের নদ-নদীর শিলা কাঁকড়া দলে দলে গভীর সমুদ্রে ও বড় নদীতে বাচ্চা ফুটানোর জন্য চলে আসে। যে কারণে সুন্দরবনে এ দু’মাসে সারা বছরের চেয়ে বেশি করে শিলা কাঁকড়া পাওয়া যায়। একারণে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বেশি লাভের আসায় অসাধু মহাজনেরা গরীব জেলেদের অগ্রিম দাদনের টাকা দিয়ে সুন্দরবনের নদ-নদীতে শিলা কাঁকড়া আহরণ করতে পাঠান। আর ওই অসাধু মহাজনেরা বনবিভাগের অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে ম্যানেজ করে শেষ ভাগে এসে অবৈধ উপায়ে দেদারছে ডিমওয়ালা শিলা কাঁকড়াসহ সকল ধরনের কাঁকড়া শিকার করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জেলে ও বনজীবী জানান, চুক্তি করে  বনবিভাগের স্টেশন অফিস থেকে ঘুষের টাকা দিয়ে সাদা মাছের পারমিট নিলেও বনে গিয়ে শিলা কাঁকড়া ধরে থাকি। তাছাড়া টহলরত ফরেস্টারদের সাথেও চুক্তি থাকে।
যে কারণে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বনে প্রবেশ করার আগেই জেলেদের খবর জানিয়ে দেওয়া হয়। এসময় জেলেরা গভীর বনের খালে লুকিয়ে থাকে। এভাবেই সুন্দরবনে শিরাসহ অন্যসব প্রজাতির কাঁকড়া ধরা অব্যাহত রয়েছে। আবার অনেক জেলে পাশ পারমিট না করেই বন বিভাগকে ম্যানেজ করে বনে ঢুকে দেদারছে শিলা কাঁকড়া ধরছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

মংলা ও শরণখোলার কয়েকজন কাঁকড়া আড়ৎদার জানান, বর্তমানে ডিমওয়ালা শিলা কাঁকড়া ১৫শ’ থেকে ১৮শ’ টাকা কেজি দরে কিনে থাকি। এসব কাঁকড়া ঢাকায় ২ হাজার থেকে আড়াই  টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়ে থাকে। তবে এ দুই মাস শিলাসহ অন্যসব প্রজাতির কাঁকড়া ধরা নিষেধ এটা জানার পরও কেন কাঁকড়া কিনছেন এমন প্রশ্নের জবাবে এক আড়তদার জানান, আমার মত অনেক কাঁকড়া ব্যবসায়ী এসময় কাঁকড়া কিনছে, তাই আমিও কিনছি। বন বিভাগ কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় এভাবে কাকড়া শিকার করা হচ্ছে।

সুন্দরবনের প্রান-প্রকৃতি নিয়ে গবেষনা করা প্রতিষ্ঠান সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাইন্ডেশনের চেয়ারম্যান পরিবেশবিদ ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম সুন্দরবনে প্রজনন মৌসুমে নির্বিচারে শিলা ছাড়াও অন্যসব প্রজাতির কাঁকড়া শিকারের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, সরকার বা বন বিভাগ কেউই ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড এই ম্যানগ্রোভ বনের প্রান-প্রকৃতি রক্ষায় মেটেই আন্তরিক। শিকার নিষিদ্ধ সময়ে ডিমওয়ালা অন্যসব প্রজাতির পাশাপাশি রপ্তানি পন্য শিলা কাঁকড়া প্রজনন মৌসুমে নির্বিচারে আহরন করার ফলে কাঁকড়ার ভান্ডার খ্যাত সুন্দরবন লাল টুকটুকে কাঁকড়ার বাচ্চা বিলুপ্তি ঘটবে। এত করে সুন্দরবনের প্রান-প্রকৃতিতে বিরূপ প্রভাবসহ আন্তজাতিক বাজারে বিপুল চাহিদা থাকা শিলা কাঁকাড়া নামের রপ্তানী পন্যটিও হুমকির মুখে পড়বে। সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য বাঁচাতে দ্রুত শিকার নিষিদ্ধ প্রজনন মৌসুমে সব ধরনের কাঁড়া আহরন সম্পূর্ন বন্ধ করতে সরকার ও বন বিভাগকে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। ক্ষতিকর দিক উল্লেক করে প্রজনন মৌসুম শুরুর আগেই কাঁকড়া আহরন বন্ধে ব্যাপক প্রচারনা চালাতে হবে।

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মেহেদীজ্জামান সুন্দরবনে শিকার নিষিদ্ধ প্রজনন মৌসুমে কাঁকড়া শিকারের তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, জেলেরা চুরি করে অবৈধ পন্থায় শিলা কাঁকড়া ছাড়াও অন্য প্রজাতির কাঁকড়া শিকার বন্ধে পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ তৎপর চালাচ্ছে। শনিবারও একটি ট্রলারে ১০ মন শিলা কাঁকড়াসহ দুই জেলেকে আটক করেছে বন বিভাগ। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর আদালত তাদের কারাগারে পাঠিয়েছে। অবৈধ উপায়ে কাঁকড়া শিকারে জেলেদের সাথে সুন্দরবন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জড়িত থাকলেও কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। সুন্দরবনের প্রান-প্রকৃতি রক্ষায় বন বিভাগ তৎপর রয়েছে।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
উপরে