প্রকাশ : ১৩ মার্চ, ২০১৭ ০২:৩২:২৯
সুনামগঞ্জে কয়েক হাজার একর বোরো ফসলী জমিতে ছড়িয়ে পড়েছে ‘ভাটানী রোগ’
বাংলাদেশ বাণী, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জে বোরো চাষীরা পড়েছেন মহা বিপাকে। একদিকে বোরো ফসল রক্ষার বেরীবাঁধ নিয়ে যেমন শঙ্কিত কৃষকরা অপরদিকে কাংলার হাওর সহ ছোট বড় বেশ কয়েকটি হাওরের কয়েক হাজার একরের বোরো ফসলী জমিতে নতুন করে দেখা দিয়ে ভাটানী নামের ধানের গোড়া পচন রোগ। এ যেন কৃষকদের উপর চলছে মরার ওপর খরার ঘাঁ।’ জেলার সদর উপজেলার বিভিন্ন হাওরে ঊনত্রিশ-ধানের জমিতে ইতিমধ্যে পোকার আক্রমণে এ রোগ ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা। পোকার আক্রমণে জমিতে রোপণকৃত ধানের চারা গাছের পুরো গোড়া পচে মরে যাচ্ছে। ধান গাছের মড়ক প্রতিরোধে বিভিন্ন প্রকারের ওষুধ প্রয়োগ করলেও সুফল না পেয়ে অনেকটা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন হাজারো কৃষক।  পরামর্ম কিংবা এ রোগ প্রতিরোধ করণীয় সম্পর্কে দিক নির্দেশনা দেয়ার জন্য মাঠ পর্যায়ে দেখা মিলছে না কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দায়িত্বশীলদেরও।   সরজমিনে গিয়ে জানা গেছে, সদর উপজেলার সুরমা, জাহাঙ্গীরনগর, রঙ্গারচর, কুরবাননগর ও মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের বেশিরভাগ এলাকার জমিতে মারাত্মকভাবে পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এলাকার কাংলার হাওরের ও ছোট হাওরের জমিতে ঊনত্রিশ ধানের গাছের গোড়ায় পচন রোগে আক্রমণ করেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা। সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারী কৃষি অফিসার বিকাশ কুমার তালুকদার জানান, ধান গাছে ‘ভাটানী’ রোগের আক্রমণ হয়েছে।’ অপরদিকে ভোক্তভোগী কৃষকরা অভিযোগ করে বলেন,  ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী কৃষি অফিসার জমিতে এসে  কোনদিন দেখেননি বা তাদেরকে কোনো পরামর্শও দেননি কীভাবে এ রোগ প্রতিরোধ করা যায়।এ কারনে বাধ্য হয়ে শহরের বিভিন্ন ওষুধের দোকানিকে জিজ্ঞেস করে ওষুধ কিনে এনে প্রয়োগ করছেন জমিতে। তাতেও  ধানগাছের গোড়া পচন রোগ প্রতিরোধ হচ্ছে না।’ সরজমিনে গেলে স্থানীয় কৃষকরা জানান, প্রথমে ধান গাছের গোছা কালো হয়। পরে পাতা লাল হয়। এরপর ধান গাছের পুরো গোছায় পচন ধরে মরে যায়। তারা পোকার আক্রমণ সন্দেহ করে মাঝরা পোকার ওষুধ প্রয়োগ করেছেন। তবুও কোনো কাজ হয়নি। ধান গাছের মড়ক প্রতিকারে কোনো ব্যবস্থা না হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা।’কৃষকরা আরো জানান, তারা সরকারি অফিস থেকে ঊনত্রিশ-ধানের বীজ প্রতি প্যাকেট ৩৬০ টাকা দরে কিনে এনে চারা করে রোপণ করেছেন। এই ঊনত্রিশ ধানের গাছের গোছায়-ই মড়ক দেখা দিয়েছে।  তারা আরো জানান, গত বছর ধানের গাছে মড়ক ছিল না, এবার এই এলাকায় কাংলার হাওর সহ আশে পাশের বেশ কয়েকটি ছোট বড় হাওরের কয়েক হাজার একর বোরো ফসলী জমিতে  ঊনত্রিশ ধানের গাছে এই মড়ক দেখা দিয়েছে।’ সুরমা ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের বাসিন্দা রুস্তম আলী ও কুলসুম বেগমের সাড়ে তিন কেয়ার, হাসিনা খাতুনের ৫ কেয়ার, লেদু মিয়ার ৫ কেয়ার, কৃষ্ণনগর গ্রামের আব্দুল আলীর ২ কেয়ার, রাহাত আলীর ২ কেয়ার জমিসহ পুরো এলাকায় বিভিন্ন কৃষকের সকল ঊনত্রিশ ধানের গাছে মড়ক দেখা দিয়েছে। এছাড়াও বেরীগাঁও এলাকার জমিতে রহমত আলীর ৪ কেয়ার, মাসুম মিয়ার ১ কেয়ার জমিতে এই মড়ক দেখা দিয়েছে বলে জানান কৃষকরা।
সৈয়দপুর গ্রামের কৃষক রুস্তম আলী ও লেদু মিয়া বলেন,  রোপণ করা ঊনত্রিশ ধান গাছে প্রথমে গোড়া থেকে পঁচন শুরু করে, পরে ধানের পুরো গোছা মরে শুকিয়ে গেছে ও ধীরে ধীরে জমির সকল ঊনত্রিশ ধানের গাছ মরে যাচ্ছে।’
সাবেক ইউপি সদস্য আবদুল আউয়াল বলেন, ‘এই এলাকায় হাওর গুলোতে বর্তমানে  ঊনত্রিশ ধান গাছের যে মড়ক দেখা দিয়েছে তাকে স্থানীয় ভাবে এ মড়ক রোগেকে ‘ডিগ’ বলা হয়ে থাকে।’সদর উপজেলা কৃষি অফিসার সালাহ উদ্দিন টিপু বৃহস্পতিবার‘ বলেন,  এখন এই মড়ক প্রতিরোধ করতে হলে জমিতে থাকা পানি শুকানোর পর ৫ কেজি এমপিও’র সাথে ছত্রাক নাশক একত্র করে প্রয়োগ করতে হবে। এই রোগের নাম গোড়া পচা রোগ।’
সর্বশেষ সংবাদ
  • পৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘরোহিঙ্গা শরণার্থীদের গ্রহণে বাংলাদেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে : ওয়াশিংটনতিনটি ভাষায় প্রকাশিত হচ্ছে শেখ হাসিনার লেখা বই ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’চট্টগ্রাম টেস্টে : ৯ উইকেটে ৩৭৭ রান তুলে দিন শেষে করেছে অসিরাআগাম নির্বাচনের দাবি আগাম রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয় : ওবায়দুল কাদেরঅবিলম্বে সহিংসতা ও রোহিঙ্গা প্রবেশ বন্ধে মিয়ানমারের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান
  • পৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘরোহিঙ্গা শরণার্থীদের গ্রহণে বাংলাদেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে : ওয়াশিংটনতিনটি ভাষায় প্রকাশিত হচ্ছে শেখ হাসিনার লেখা বই ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’চট্টগ্রাম টেস্টে : ৯ উইকেটে ৩৭৭ রান তুলে দিন শেষে করেছে অসিরাআগাম নির্বাচনের দাবি আগাম রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয় : ওবায়দুল কাদেরঅবিলম্বে সহিংসতা ও রোহিঙ্গা প্রবেশ বন্ধে মিয়ানমারের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান
উপরে