প্রকাশ : ১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ০১:৪১:২৬
বাজারে আসছে শীত কালিন সবজি : তবুও দাম চড়া
বাংলাদেশ বাণী, ফরিদুল মোস্তফা খান, কক্সবাজার থেকে : বাজারে উঠতে শুরু করেছে শীত কালিন সবজি, একই সাথে সরবরাহও আছে প্রচুর তবুও দামের কমতি নেই। এখনো জেলার বেশির ভাগ বাজারে ৬০ টাকার নীচে সবজি পাওয়া যাচ্ছে না। এছাড়া নতুন আসা শীত কালিন সবজির দামও ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। এতে বাজার করতে এসে সস্তি ফিরছে না মানুষের মনে। বিশেষ করে নি¤œ আয়ের মানুষজন খুবই অস্বস্তির মধ্যে আছে।

এদিকে বিক্রেতাদের দাবী মাঠ পর্যায়ে সবজির দাম বেশি। আর চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম তাই বাজারে সবজির দাম কমছে না। আর জেলায় নতুন করে আসা ১০ লাখ রোহিঙ্গার কারনে সবজির দাম কমার সম্ভবনা আপাতত নেই বলে মনে করেন বেশির ভাগ ব্যবসায়ি।

১৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় শহরের কানাইয়া বাজারে গিয়ে মাছ তরকারী কেনারত অবস্থায় নুনিয়ারছড়া এলাকার বাসিন্দা রমিজ উদ্দিন (৪০) বলেন, আমি পেশায় টমটম চালক সারাদিন টমটম চালিয়ে ৮০০ টাকার মত আয় হয়েছে। এর মধ্যে গ্যারেজ ভাড়া এবং ব্যাটারী চার্জ খরচ বাদ দিলে আর ৫০০ টাকা থাকবে। এর মধ্যে বাজারে এসে মাছ তরকারী কিনতে গিয়ে সব টাকা শেষ হওয়ার পথে।

তিনি বলেন, দু মাস আগেও আলুর কেজি ছিল ১৫ টাকা সেই আলু এখন ৩৫ টাকা, কাচাঁ মরিচ কেজি কিনেছি ৩০ টাকা সেই কাচাঁ মরিচ এখন ১৩০ টাকা,বেগুন ছিল ১৮ টাকা সেই বেগুন এখন ৬০ টাকা, এছাড়া চাল কিনতে গিয়ে আরো খারাপ অবস্থা। আগে এক কেজি চাল কিনতাম ৩০ টাকার মধ্যে এখন সেই চাল কিনছি ৫৩ টাকা দিয়ে। অথচ আমরা ভাড়া বাড়িয়ে চাইলে পেসেঞ্জার গালিগালাজ করে। এ সময় বাজারে গিয়ে দেখা যায় বাজারে নতুন আসা সিম বিক্রি হচ্ছে কেজি ১০০ টাকা,বাধাকপি ১০০ টাকা, টমোটে কেজি ১২০ টাকা, বড় আলু কেজি ৬৫ টাকা, মুলার দাম এখনো ৬০ টাকা, বরবটি ৬৫ টাকা, পেপে ৫০ টাকা, ফুলকপি ৭০ টাকা,তিতাকরলা ৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ সময় ব্যবসায়ি আবদুল গফুর বলেন, এখন সবজির দাম কম থাকার কথা, কিন্তু বাজারে সবজির তেমন মজুদ নেই। তাছাড়া মাঠ পর্যায়ে সবজির দাম বাড়তি তাই আমাদের কাছেও সবজির দাম বাড়তি এখানে আমাদের করার কিছুই নেই। তিনি বলেন কক্সবাজারে যতদিন রোহিঙ্গা থাকবে ততদিন বাজারের তরিতরকারীর দাম কমবে বলে মনে হয় না। আগে কোন দিন এত দামে সবজি বিক্রি করিনি। অন্যান্য বছর এই সময়ে কাঁচা মরিচ কেজিতে ২০ টাকা ছিল, মুলা ৫ টাকাও বিক্রি করেছি, ফুলকপি ১৫ টাকা বাধা কপি ১৫ টাকা দরে বিক্রি করেছি কিন্তু এখন সেই সবজি বিক্রি করছি তার ৩ গুন দামে এতে আমরা ওখুবই অস্বস্তি করা পরিবেশের মধ্যে আছি।

সকাল বেলা শহরের বাহারছড়া বাজারে গিয়ে দেখা যায় সেখানেও সবজির দাম আকাশ চুম্বি। এখানে শাঁক সবজিও বিক্রি হচ্ছে বাড়তি দামে, এ সময় বাহারছড়া এলাকার আবছার বলেন তরীতরকারির দামতো বাড়ছেই সাথে সাথে শাঁক সবজির দাম ও বেশ চড়া আগে যেই কলমী শাক ১০ টাকার ৩ আঠি দিত সেই কলমী শাঁক এক আঠি ১০ টাকা চাইছে। এছাড়া পালং শাক,লাল শাক,মুলা শাক, লাউ সহ সব কিছুর দাম দ্বিগুনের চেয়ে বেশি। এমনকি একটি লেবু বিক্রি করছে ১০ টাকায়। মানুষ কোথায় যাবে খাবে কি? আমার মতে মানুষের আয়ের সাথে ব্যায়ের ব্যাপক অসংগতি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন বাংলাদেশে শুধু সরকারি কর্মচারীরা ছাড়া আর কেউ ভাল নেই। এক মাত্র তারাই ভাল আছে,সরকারি বিপুল পরিমান বেতনতো আছেই সাথে আছে বাড়তি টাকা। একই বাজারে ব্যবসায়ি মোহাম্মদ আলম বলেন মূলত পণ্যের চাহিদার উপরে নির্ভর করে দাম, যে পন্যের যত বেশি চাহিদা থাকে সেই পন্যের ততবেশি দাম বাড়ে আসলে এখন সব ধরনের সবজি বা তরিতরকারীর চাহিদা অনেক বেশি।

এছাড়া কক্সবাজারে বর্তমানে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গার জন্য যে পরিমান খাদ্য দরকার সেই পরিমান খাদ্য এখানে উৎপাদন হচ্ছে না বরং চট্টগ্রাম থেকে সবজি আনতে হচ্ছে তাই সবজির দাম কমার কোন সম্ভবনা নেই বলে জানান তিনি। আরেক ব্যবসায়ি শরীফ বলেন আগে আমাদের সবজি চট্টগ্রামে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করতে হতো এখন সেই পরিস্থিতি ভিন্ন এখন তাদের সবজি আমাদের বাজারে আনতে হচ্ছে। আগে রামুর বাজার থেকে আমরা পাইকারী সবজি কিনে খুচরা বাজারে বিক্রি করতাম এখন সেই পাইকারী ব্যবসায়ি বলছে প্রতিদিন সকাল বেলায় তার সব সবজি নিয়ে যাচ্ছে সরকারি বা বিভিন্ন সংস্থার লোকজন। বাইরে কোন সবজি বিক্রি করতে দিচ্ছে না। মুলত তারা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জন্য নিয়ে যায়। দৈনিক ১০ ট্রাকের মত মাল সেখানেই নিয়ে যাচ্ছে তাহলে আমাদের বাজারে কিভাবে সবজি বা তরকারী থাকবে ? তাই দাম বাড়তি সে জন্য দাম কমার সম্ভবনা আপাতত নেই বলে জানান তিনি।

এদিকে চকরিয়া বাজারের পাইকারী তরকারী ব্যবসায়ি আবদুস সালাম বলেন কক্সবাজারে সবচেয়ে বড় সবজির আড়ৎ চকরিয়ায় এখানে ১৮টি ইউনিয়নের বেশির ভাগ মানুষই চাষী এবং প্রত্যেকে নিজেদের উৎপাদিত ফলফলাদি বিভিন্ন ভাবে বাজারে বিক্রি করে সংসার চালায়। তিনি বলেন আগে আমাদের সবজি চট্টগ্রামে নিয়ে যেতাম কিন্তু এখন মাঠ থেকেই সবজি কিনে নিয়ে যাচ্ছে অনেকে। চাষীকে আর সবজি নিয়ে বাজারে যেতে হয় না। কারন এত বেশি চাহিদা যার ফলে সবজির দাম মাঠ পর্যায়েও অনেক বেশি। তবে সেক্ষেত্রে মাঠ পর্যায়ের চাষীরা বেশ লাভবান হচ্ছে বলে জানান তিনি।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে : ওআইসি২০৪১ সাল নাগাদ বাংলাদেশের-প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে ৯ হাজার মেগা: বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা রয়েছেআগামী ৩০ অক্টোবরের পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল : ইসি সচিবশেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি আজ ৫'শ মেগা: বিদ্যুৎ সরবরাহের উদ্বোধন করবেনডেঙ্গু বিস্তারের আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদেরদশম জাতীয় সংসদের ২২ তম অধিবেশন চলাকালীন ডিএমপি'র নিষেধাজ্ঞাশক্তিশালী পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ৫১ হজ ফ্লাইটে ১৮ হাজার ৬৯৩ জন হাজী দেশে ফিরেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন চলতি বছরের ডিসেম্বরের শেষে : ইসি সচিবরুট পারমিটবিহীন যান চলাচল বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশসমূদ্র বন্দরগুলোকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছেরোহিঙ্গা গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের বিচার আহ্বান জাতিসংঘের তদন্তকারীদলের ঝিকরগাছা পৌর আ'লীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেনের অন্তিম বিদায় থাইল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ষষ্ঠ স্থান নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশআজ জাতীয় বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ৪২ তম মৃত্যুবার্ষিকী শোলাকিয়া ময়দানে দেশের বৃহত্তম ঐতিহাসিক ঈদ জামাত অনুষ্ঠিতত্যাগের মহিমায় সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিতসন্দেহ নেই গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক জড়িত ছিল : প্রধানমন্ত্রীআজ ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত পবিত্র ঈদুল আজহাগ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে অস্থায়ী শহীদ বেদীতে প্রধানমন্ত্রী'র শ্রদ্ধা
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে : ওআইসি২০৪১ সাল নাগাদ বাংলাদেশের-প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে ৯ হাজার মেগা: বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা রয়েছেআগামী ৩০ অক্টোবরের পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল : ইসি সচিবশেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি আজ ৫'শ মেগা: বিদ্যুৎ সরবরাহের উদ্বোধন করবেনডেঙ্গু বিস্তারের আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদেরদশম জাতীয় সংসদের ২২ তম অধিবেশন চলাকালীন ডিএমপি'র নিষেধাজ্ঞাশক্তিশালী পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ৫১ হজ ফ্লাইটে ১৮ হাজার ৬৯৩ জন হাজী দেশে ফিরেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন চলতি বছরের ডিসেম্বরের শেষে : ইসি সচিবরুট পারমিটবিহীন যান চলাচল বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশসমূদ্র বন্দরগুলোকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছেরোহিঙ্গা গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের বিচার আহ্বান জাতিসংঘের তদন্তকারীদলের ঝিকরগাছা পৌর আ'লীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেনের অন্তিম বিদায় থাইল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ষষ্ঠ স্থান নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশআজ জাতীয় বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ৪২ তম মৃত্যুবার্ষিকী শোলাকিয়া ময়দানে দেশের বৃহত্তম ঐতিহাসিক ঈদ জামাত অনুষ্ঠিতত্যাগের মহিমায় সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিতসন্দেহ নেই গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক জড়িত ছিল : প্রধানমন্ত্রীআজ ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত পবিত্র ঈদুল আজহাগ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে অস্থায়ী শহীদ বেদীতে প্রধানমন্ত্রী'র শ্রদ্ধা
উপরে