প্রকাশ : ০৮ মে, ২০১৭ ০১:৫২:২৪
কক্সবাজারে প্যারাবন উজাড় করে সরকারী জমি দখলের মহোৎসব
বাংলাদেশ বাণী, ফরিদুল মোস্তফা খান, কক্সবাজার থেকে : কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্যারাবন নিধন আর সরকারী খাস জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মহোৎসব চলছে। থেমে নেই নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন, অবাধে পাহাড় কর্তন, বনের গাছ নিধন ও মাটি বিক্রি। প্যারাবন রক্ষা করতে গিয়ে উল্টো হামলার শিকার হচ্ছে বন বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। প্রশাসনিক দূর্বলতায় বারবার পার পেয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা।

একদিকে কক্সবাজারের উন্নয়নে মহাপরিকল্পনায় এগুচ্ছে সরকার অপরদিকে দখলবাজরা দলমত নির্বিশেষ ঐক্যবদ্ধ। দখলবাজ আর সুবিধাভোগীদের থাবায় ক্ষতবিক্ষত হতে চলেছে কক্সবাজারের পরিবেশ। অপরাধে পিছিয়ে নেই সরকারী দলের পরিচয় বহনকারী লোকেরা। সবার চাওয়া একটাই- সরকারী জমিতে ভাগ বাসতেই হবে।

গত সপ্তাহ ধরে শহরের কস্তুরাঘাট সংলগ্ন বাঁকখালী তীরে ১০/১৫ জন শ্রমিক দিয়ে প্যারাবন কেটে অবৈধ বসতি নির্মাণের কাজ চলছে। ইতোমধ্যে মহেশখালীর সোনাদিয়া এলাকার প্রায় দেড় হাজার একর প্যারাবন কেটে চিংড়িঘের নির্মাণ করা হয়েছে। কলাতলী সুগন্ধা পয়েন্টে কোটি টাকার সরকারী জমি দখল করে দোকানপাট নির্মাণ করেছে প্রভাবশালীরা। চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী বনবিটে প্রতিদিন কাটা হচ্ছে পাহাড়ের মাটি। গভীর জঙ্গলে শক্তিশালী ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নির্বিচারে বালু উত্তোলন চলছে। বনবিট কর্মকর্তার দূর্বলতায় উজাড় হচ্ছে সরকারী বনাঞ্চল। এসব কারণে বর্তমান সরকারের চোখে পড়ার মতো উন্নয়ন কর্মকান্ড আড়াল হয়ে যাচ্ছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

মহেশখালীর সোনাদিয়া চ্যানেলের ঘটিভাঙ্গার হারা বাইন্ন্যার চর এলাকায় ন্যাচারাল বন, সৃজিত বন, খাসজমি দখলের প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছে শক্তিশালী একটি সিন্ডিকেট। ইতোমধ্যে এলাকার প্রায় দেড় হাজার একর প্যারাবন কেটে চিংড়িঘের তৈরী করা হয়েছে। আরও কয়েকশ একর প্যারাবন নিধন করে সেখানে চিংড়ি ঘের নির্মাণের আয়োজন স¤পন্ন। দখলবাজ সিন্ডিকেটে রয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার পাশার ছেলে মোস্তফা আনোয়ার ও সরকারদলীয় এমপি আশেক উল্লাহ রফিকের জেঠাত ভাই বিএনপি নেতা হাবিবুল্লাহ। অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় এমপি আশেক উল্লাহ রফিকের আশীর্বাদে প্যারাবন দখল প্রতিযোগিতায় একাট্টা হয়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি।

অভিযোগ রয়েছে, দখলবাজরা ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকায় দখলবাজরা স্থানীয় প্রশাসনকে তোয়াক্কাই করছে না। প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার চেষ্টা করেও অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে প্যারাবন উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। বাধা দিতে গিয়ে হুমকির মুখে পড়তে হয়েছে বন কর্মকর্তাদের।

সূত্র আরও জানায়, প্রায় দেড় হাজার একর জমি এখন তিন ভাগে প্রভাবশালীদের দখলে। এর মধ্যে প্রায় ৫০০ একর জমির অবৈধ দখল করে চিংড়ি ঘেরের জন্য প্রস্তুত করেছে মোস্তফা আনোয়ার। আর প্রায় ১ হাজার একরের মতো জমি দখল করে মেয়র মকছুদ মিয়া এবং হাবিব উল্লাহ এখনও কাজ করে যাচ্ছেন। উপকূলীয় বনবিভাগের মহেশখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন খন্দকার বলেন, অবৈধ দখল উচ্ছেদে আমি নিজে পুলিশ নিয়ে ৫ বার অভিযানে গিয়েছি। থানায় অভিযোগও করেছি; কিন্তু থানা কর্তৃপক্ষ তা নথিভুক্ত করেনি।

রিমোর্ট এরিয়া হওয়ায় অস্ত্রধারীদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হয়ে উঠছে না বলেও মন্তব্য করে ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, এর আগে বন বিভাগের দেয়া একটি অভিযোগ মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। সেখানে বন ও মাটি কাটায় জড়িত শ্রমিকরাই আসামি হয়েছেন। প্যারাবন কাটার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিএনপি নেতা হাবিব উল্লাহ। তিনি বলেন, কিছু লোক আমার নামে ঘের করছে তাই প্রশাসন আমার নাম বলছে।

মোস্তফা আনোয়ার বলেন, আমরা সিন্ডিকেট করে নয়, আমরা আলাদা আলাদাভাবে ঘের করছি। মেয়র মকছুদ মিয়া বলেন, যে বাধগুলো দেয়া হচ্ছে তা আমাদের পুরনো দখলীয় জমি। আমরা কোনো প্যারাবন কাটিনি। জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন বলেন, দখলদারদের তালিকা করতে উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গত সপ্তাহ ধরে শহরের কস্তুরাঘাট এলাকায় প্যারাবন কেটে নির্মাণ করা হচ্ছে বসতি। প্রতিদিন সেখানে ১০ থেকে ১৫ জন শ্রমিক নিয়োজিত করে পরিবেশ বিধ্বংসী এ কাজ চলছে। খবর পেয়ে বুধবার (৩ মে) অভিযানও চালায় পরিবেশ অধিদপ্তর টীম। ঘটনাস্থল থেকে হাতেনাতে ৫ জন শ্রমিক আটক করা হলেও তাদের ছিনিয়ে নেয় দখলবাজচক্রের মূল হুতা আবদুল খালেক। লাঞ্চিত করা হয় পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সরদার শরীফুল ইসলামকে। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থার পরিবর্তে গোপন সমঝোতার অভিযোগে।  

কক্সবাজার শহরের পেশকারপাড়াস্থ বাঁকখালী নদী তীরবর্তী সরকারী ১ নং খাস খতিয়ানভুক্ত জমি দখলে নিতে প্রভাবশালী চক্র মরিয়া হয়ে ওঠেছে। নদীতে শক্তিশালী ড্রেজার বসিয়ে হরদম তুলা হচ্ছে বালু। পেশকারপাড়ার উত্তর-পূর্ব অংশের বাঁকখালী নদীতে শক্তিশালী ড্রেজার বসিয়ে অবাধে বালু উত্তোলন চলছে। এসব বালু দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে খাস জমি। নির্মিত হচ্ছে বসতঘর ও স্থাপনা। ইতোমধ্যে অন্তত ৫০টি প্লট তৈরী করে তা বিক্রি শুরু করেছে। এতেকরে আশপাশের গ্রামরক্ষা বাঁধ হুমকিতে পড়েছে। ভেঙে পড়ছে বেড়িবাঁধ।

খুটাখালী বনবিটের অধীন পাগলিবিল এলাকায় অন্তত ৩৫টি শক্তিশালী ড্রেজার বসিয়ে ছরা থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের কারণে আশ পাশের এলাকায় ভাঙন ধরেছে। বিপন্ন হয়ে পড়েছে সামাজিক পরিবেশ। হুমকির মধ্যে রয়েছে জীববৈচিত্র।

শুধু পাগলী বিল ছড়া ও খুটাখালী বন বিটের জীববৈচিত্র্যই নয়, অব্যাহতভাবে অনিয়মতান্ত্রিক এ বালি উত্তোলনে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রায় ৪ কিলোমিটার এলাকার বসতবাড়ী রাস্তাঘাট, মুক্তিযোদ্ধা সামাজিক বনায়ন, ২০০৭/২০০৮ সালের বনবিভাগের সৃজিত সেগুন বাগিচা, মধুশিয়ার শত বছরের গর্জন বাগানসহ বিভিন্ন অবকাঠামো।

প্রতিদিন এই বালি উত্তোলনের কারণে পুরো এলাকায় পরিবেশ এখন বিপন্ন। অনেকই পরিবেশ বির্পযয়ের আশংকায় বসতবাড়ী ছেড়ে চলে গেছে। নানাভাবে ক্ষতির সম্মুখিন হলেও এর সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিরা জড়িত থাকায় নেয়া যাচ্ছে না কোনো পদক্ষেপ। তাদের সঙ্গে গভীর সখ্যতা রয়েছে স্থানীয় বনবিট কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাকের। তীব্র ক্ষোভ থাকলেও কিছুই বলতে পারছেন না ভুক্তভোগীরা। সেখানকার মানুষরা অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় বনবিট কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাকের সঙ্গে আঁতাত করে সরকারদলীয় কিছু নেতা অবৈধভাবে এ বালি উত্তোলন করে চলেছে। মাসিক মাসোহারার কারণে থামছেনা পরিবেশ ধ্বংসযজ্ঞ।

শহরের কলাতলী হোটেল মোটেল জোন এলাকার সুগন্ধা পয়েন্টে কোটি টাকা মূলের সরকারী জমি দখল করে নির্মিত হয়েছে মার্কেট ও দোকানঘর। একইভাবে মেরিন ড্রাইভ সড়কের দুই পশেই অসংখ্য দখলবাজ থাবা বিস্তৃত করে রেখেছে। দখল করা হয়েছে হিমছড়ি এলাকার বনভূমি। গত ১৩ এপ্রিল সুগন্ধা পয়েন্টের প্রায় দেড় শতকোটি টাকার সরকারি জমি দখলে রাতারাতি মাটি ভরাট কাজ বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। ওই সংশয়ে কাঁটাতারের ঘেরা দিয়ে সরকারী জমি পুনরুদ্ধার করা হয়।

কিন্তু অভিযানকারী ফিরে না আসতেই সতর্কীকরণ সাইনবোর্ডটিও উপড়ে ফেলে দখলবাজরা। আবারে গড়ে তুলে অবৈধ স্থাপনা। সুগন্ধা পয়েন্টের এই জমি দখলে ২০ জনের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট জড়িত। প্রায় সাড়ে তিন একর জমি হাতিয়ে নিতে গত ৫/৬ বছর আগে আবদুল আওয়াল মিঠু ও রাসেল নামের দুই ব্যক্তির নেতৃত্বে একটি চক্র মাঠে নামে। নেপথ্যে রয়েছে আরো ৬/৭ জন রাঘববোয়াল। প্রশাসনে ঘাপটি মেরে থাকা দখলবাজের নামও আলোচনায় ওঠে আসছে।

 
সর্বশেষ সংবাদ
  • পৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘরোহিঙ্গা শরণার্থীদের গ্রহণে বাংলাদেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে : ওয়াশিংটনতিনটি ভাষায় প্রকাশিত হচ্ছে শেখ হাসিনার লেখা বই ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’চট্টগ্রাম টেস্টে : ৯ উইকেটে ৩৭৭ রান তুলে দিন শেষে করেছে অসিরাআগাম নির্বাচনের দাবি আগাম রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয় : ওবায়দুল কাদেরঅবিলম্বে সহিংসতা ও রোহিঙ্গা প্রবেশ বন্ধে মিয়ানমারের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান
  • পৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘরোহিঙ্গা শরণার্থীদের গ্রহণে বাংলাদেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে : ওয়াশিংটনতিনটি ভাষায় প্রকাশিত হচ্ছে শেখ হাসিনার লেখা বই ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’চট্টগ্রাম টেস্টে : ৯ উইকেটে ৩৭৭ রান তুলে দিন শেষে করেছে অসিরাআগাম নির্বাচনের দাবি আগাম রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয় : ওবায়দুল কাদেরঅবিলম্বে সহিংসতা ও রোহিঙ্গা প্রবেশ বন্ধে মিয়ানমারের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান
উপরে