প্রকাশ : ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০২:১১:২২
টাঙ্গাইলে ৬ মাসেও শিক্ষক দম্পতি হত্যাকারীরা অধরা : পুলিশের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ
বাংলাদেশ বাণী, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : দীর্ঘ ছয় মাসেও টাঙ্গাইলে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অনিল কুমার দাশ ও তার স্ত্রী কল্পনা দাশের হত্যাকারীদের সনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে অনেকটা হতাশার মধ্যে রয়েছে নিহতের পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী। এখন পর্যন্ত এ হত্যা মামলার কোন নির্ধারিত আসামীকে ধরতে না পারলেও বিভিন্ন ভাবে তদন্ত করছেন এবং দ্রুত আসামীদের ধরা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ প্রশাসন।
 
এদিকে মামলার কি অবস্থা তা দেখার জন্য নিহতের বাড়ি পরিদর্শন ও এলাকাবাসীর সাথে আলাপ করেন ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আকতারুজ্জামান। দীর্ঘদিন ধরে এ হত্যা মামলার কোন আসামীকে সনাক্ত করতে না পারায় ডিআইজি’র আদেশে তিনি এখানে আসেন বলে জানা গেছে।
 
এলাকাবাসী জানায়, তারা খুব ভালো মানুষ ছিলেন। আমরা কখনো তাদের সাথে কারো বিরোধ দেখিনি। তারপরও কেন তাদের হত্যা করলো। কারাই বা এ হত্যার সাথে জড়িত আছে তাও জানি না। প্রশাসন থেকে এখন পর্যন্ত কোন আসামী ধরতে পারেনি। এ অবস্থায় আমরাও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ এলাকার মানুষ অনেক আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। সরকারের কাছে আমাদের দাবি একটাই দ্রুত এ হত্যাকারীদের ধরে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুন।
 
গালা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাজকুমার সরকার বলেন, আমার এলাকায় এমন হত্যাকান্ড এর আগে হয়নি। তবে তিনি অনেক ভালো মানুষ ছিলেন। তারমত মানুষ পাওয়া যাবে না। তিনি যতদিন শিক্ষকতা করেছেন তার প্রতি কোন প্রকার অভিযোগ উঠেনি। তার এ ঘটনায় আমরাও মর্মাহত। কিন্তু কি কারনে তাকে ও তার স্ত্রীকে হত্যা করা হলো এটা আমরা কেউ বুঝতে পারছি না। তবে আমরা চাই প্রশাসনের দিক থেকে আরো দ্রুত এ হত্যার সাথে জড়িতদের খুজে বের করে শাস্তির ব্যবস্থা করা।
 
২নং গালা ইউনিয়নের ৬নং ওর্য়াড মেম্বার আ সামাদ মিয়া বলেন, এতোদিন হয়ে গেলো কিন্তু এখনো কোন আসামী ধরা পড়লো না। আমরা এলাকাবাসীও চেষ্ঠা করছি এর সাথে যদি কেউ জড়িত থাকে তাহলে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেব।
 
রসুলপুর বাছিরন নেছা উচ্চ বিদালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও নিহতের কাকাতো ভাই নিবারণ দাস বলেন, তার সাথে কারো কোন বিরোধ-বিবাদ ছিলো না। এতোবছর ধরে এখানে আছে কেউ বলতে পারবে না তিনি কারো সাথে জগড়া করেছেন কিনা। কিন্তু কেন তাকে খুন করা হলো। এ ঘটনার পর থেকে আমরাও অনেক আতঙ্কে আছি। তারমত মানুষ খুন হয়ে গেল তার কোন বিচার না হলে আমাদের কি হবে।
 
নিহত শিক্ষক দম্পতির ছেলে নির্মল কুমার দাশ বলেন, এতদিন হয়ে গেল কিন্তু এখন পর্যন্ত আমার বাবা-মার হত্যাকারীদের ধরতে পারছে না পুলিশ। এতে আমি এবং আমার পরিবারের অনান্য সদস্যরা হতাশার মধ্যে রয়েছি। আর কতদিন হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতরা ছাড় পাবে। তবে প্রশাসন থেকে যদি দ্রুত তদন্ত করে তাহলে হত্যাকারীদের দ্রত বের করা সম্ভব।
 
নিহত শিক্ষক দম্পতির মেয়ে অঞ্জনা দাস মুঠোফোনে জানায়, আমাদের সাথে বাইরের কারো কোন বিরোধ ছিলো না। যা ছিল তা আমাদের আত্মীয়দের মধ্যেই। আমি দেশের বাইরে থাকি এবং আমার ভাই ঢাকায় ভালো চাকরি করে এ সুযোগ নিয়ে আমাদের আত্মীয় স্বজনরা সব সময় নিতে চেয়েছে। বাবা-মার কাছে শুনেছি স্বপন কাকা মাঝে মাঝে বাড়িতে গিয়ে টাকা চাইতো। না দিলে হুমকি দিতো। আর আমার বাবা কোনদিন সন্ধ্যার পরে বাজারে যেত না। কিন্তু ঘটনার দিন আনন্দ কাকা আমার বাবাকে বাজারে যেতে বলেছিল। তারপর থেকে আর কেউ আমার বাবাকে দেখেনি। পরে বাবা ও মার লাশ পাওয়া যায় বাড়ির সেফটি ট্যাংক থেকে। এটা কোন বাইরের কাজ না। এটা আমাদের মধ্যেই কেউ করেছে। 
 
টাঙ্গাইল গোয়েন্দা পুলিশের ওসি (উত্তর) নাজমুল হক ভূইয়া বলেন, আমরা আমাদের মত করে খুব দ্রুত গতিতে কাজ করে যাচ্ছি। এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে আমরা অনেকেই আটক করেছিলাম। কিন্তু এখন পর্যন্ত হত্যার সাথে জড়িত এমন কাউকে পাইনি। তবে দ্রুত তাদের ধরে আইনের আতত্তায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।
 
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৭ জুলাই বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল সদর উপজেলার গালা ইউনিয়নের রসুলপুরে সেফটি ট্যাংক থেকে রসুলপুর বাছিরন নেছা উচ্চ বিদালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অনীল কুমার দাশ (৬৫) ও তার স্ত্রী কল্পনা দাশ (৫৫) এর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ব্যাপারে পরের দিন শুক্রবার সন্ধ্যায় নিহত দম্পতির ছেলে নির্মল কুমার দাশ বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
সর্বশেষ সংবাদ
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
উপরে