প্রকাশ : ২৯ মার্চ, ২০১৭ ১০:০৮:৪৯
দরকার স্থায়ী সমাধান : জঙ্গিদের বোমায় রক্তাক্ত সিলেট
বাংলাদেশ বাণী, ২৯ মার্চ, ঢাকা : এত দিন আমরা ধরেই নিয়েছিলাম যে জঙ্গিদের অপতৎপরতা আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে আসছে। কিন্তু বর্তমান অবস্থাদৃষ্টে যা বোঝা যাচ্ছে তা হলো জঙ্গি অপতৎপরতা তো কমেইনি বরং ভয়াবহ রকমভাবে বেড়ে গেছে। তার প্রমাণ হলো সিলেটে জঙ্গিদের বোমা হামলা।

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়িতে ‘জঙ্গিবাড়ি’ আতিয়া মহলে সেনাবাহিনী এবং পুলিশের সম্মিলিত অভিযানের মধ্যে যেভাবে গেরিলা কায়দায় জঙ্গিরা বোমা হামলা চালিয়ে এক পুলিশ ইন্সপেক্টরসহ ছয়জনকে হত্যা করেছে, তা হতবাক করে দিয়েছে সবাইকে। শনিবার সন্ধ্যা ও রাতে দুই দফায় পুলিশ চেকপোস্টের সামনে ভয়াবহ এই বোমা হামলা চালানো হয় বলে গণমাধ্যমে খবর এসেছে।

সন্ত্রাসীরা মোটরসাইকেলযোগে এসে এই হামলা চালায়। হামলায় ৩০ জনেরও অধিক আহত হয়েছেন। জঙ্গিবাড়ি ঘিরে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ চলাকালে সেনাবাহিনীর প্রেস বিফ্রিং শেষ হওয়ার পরপরই এই হামলা চালানো হয়, যা নিঃসন্দেহে অজানা এক আশঙ্কাজনক পরিস্থিতিকেই নির্দেশ করছে।

প্রকাশিত সংবাদ মাধমে জানা যায়, জঙ্গিবাড়ি আতিয়া মহল নিয়ে যে অপারেশন চালানো হচ্ছে তা এখনো সমাপ্ত হয়নি। আবার ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ পুলিশ, র‌্যাব কিংবা সোয়াটও প্রত্যক্ষ অভিযান চালায়নি। পুরো অভিযানের নেতৃত্ব এসে পড়েছে প্যারা কমান্ডোর হাতে। প্যারা কমান্ডোর সঙ্গে জঙ্গিদের দফায় দফায় গোলাগুলি-বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে চলেছে।

এ আতঙ্কজনক পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে জঙ্গিরা তলে তলে কত শক্তিশালী হয়ে উঠেছে, সেটিও স্পষ্ট। মোদ্দা কথা হলো যারা একটি দেশের প্রশিক্ষিত সেনাবাহিনীর সঙ্গে প্রতিরোধের দুঃসাহস রাখে বা রাখছে, তাতে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুতর পরিস্থিতিরই যে জানান দিচ্ছে তা অস্বীকারেরও সুযোগ থাকছে না। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সরকার কিংবা রাজনৈতিক নেতাদের পক্ষ থেকে যতই বলা হোক জঙ্গি নির্মূল হয়েছে, জঙ্গিদের মেরুদন্ড ভেঙেছে, বাস্তবতা তার বিপরীত অবস্থানকেই চিত্রিত করছে। আমরা বলছি না জঙ্গি দমন বা নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের সফলতা নেই। সরকার যে জঙ্গি সন্ত্রাসী দমনে ‘জিরো টলারেন্স’ অবস্থানে সেটিও স্পষ্ট।

অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে জঙ্গিরা কীভাবে শক্তিশালী মারণাস্ত্রের মজুদ করছে, এ বিষয়টিও সাধারণ মানুষকে ভাবিয়ে তোলার জন্য যথেষ্ট। আর সার্বিক বিবেচনায় বিদ্যমান পরিস্থিতি যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিরই নির্দেশক, এমনটি বলাও বোধ করি বাহুল্য নয়।
বাংলাদেশে জঙ্গিদের উত্থান ও তাদের গোপনে সংগঠিত হওয়া নিয়ে এ পর্যন্ত কম আলোচনা হয়নি।

আলোচনায় উঠে এসেছে জননিরাপত্তা রক্ষার বিষয়টিও। গত বছর গুলশান হত্যাকান্ড থেকে শুরু করে সর্বশেষ সিলেটে যে হামলা চালানো হলো, তাতে একটি বিষয় স্পষ্ট যে-ক্ষমতাসীনরা যতই বলুক এটি বিএনপি-জামায়াতের কাজ, এরা জঙ্গিদের উস্কানি দিচ্ছে। আমরা মনে করি, কেবল বিরোধিতার জন্য বিরোধিতা বা দোষ চাপানোর সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে এসে বিষয়টি নিয়ে সম্মিলিত রাজনৈতিক ঐক্য অত্যন্ত জরুরি।

কিছুদিন আগে গুপ্তহত্যার মাধ্যমে একের পর এক বিদেশি নাগরিকসহ দেশের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের। এ পরিস্থিতি কিছুতেই একটি স্বাধীন রাষ্ট্রে চলতে পারে না। জঙ্গি হামলাগুলো বিবেচনায় এমন আশঙ্কাও অমূলক নয় যে, এদের রুখে দেয়া না গেলে এদের হাতে আক্রান্ত হবে স্থাপনা, আক্রান্ত হবে উৎসব, সর্বোপরি সাধারণ মানুষ। ইতোমধ্যে এর আলামতও স্পষ্ট। জঙ্গি শক্তির কাছে পুলিশ, র‌্যাব, সোয়াট যে নিছকই তুচ্ছ। সিলেটের জঙ্গিবিরোধী অভিযানে ঘটে যাওয়া রক্তাক্ত হামলাগুলো কী সেই বার্তাও দিচ্ছে না?

অনস্বীকার্য যে, জঙ্গিরা সরকার এবং রাষ্ট্রকাঠামোর বিপক্ষে সর্বনাশা এক আতঙ্ক হিসেবেই আবির্ভূত হয়েছে। অপশক্তি এবং মানবতা ধ্বংসকারী এই জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের নিয়ন্ত্রণ, নির্মূলে এদের পৃষ্ঠপোষক ও মদদদাতাদেরও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিষয়টিও বহুবার সামনে এসেছে। বিশেষজ্ঞরা এ-ও বলেছেন, জঙ্গি নির্মূল করতে চাইলে এদের অর্থ ও অস্ত্রের উৎস বন্ধ করতে হবে।

বাস্তবতা হলো, সংশ্লিষ্টরা যে উদ্যোগ নেয়নি এমনটিও নয়। কিন্তু তা কেন বাস্তবায়িত হয়নি- তাও নানা প্রশ্নের জন্ম দেয়। বিষয়টি অত্যন্ত পরিতাপেরও। জঙ্গিদের আশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ব্যর্থতা জঙ্গিদের আরও উৎসাহিত করছেথ এমন আলোচনাও হয়তো অযৌক্তিক নয়। সরকারের সদিচ্ছা থাকলেই চলবে না, তার যথাযথ বাস্তবায়নও যে অত্যন্ত জরুরি, সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলাগুলো এ কথায় স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে।

আমরা মনে করি, জঙ্গিগোষ্ঠীর মূলোৎপাটনে সময়োপযোগী কৌশল প্রণয়ন এবং তার যথাযথ বাস্তবায়নের বিকল্প থাকতে পারে না। দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা, জননিরাপত্তা নিশ্চিত এবং জঙ্গি হামলার পুনরাবৃত্তি রোধে, বিষয়টি সরকারকেই নিশ্চিত করতে হবে।

 
সর্বশেষ সংবাদ
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
উপরে