প্রকাশ : ০৪ এপ্রিল, ২০১৭ ০৩:১১:৫৮
শ্রমবাজারের সন্ধান বাংলাদেশের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ
বাংলাদেশ বাণী, ৪ এপ্রিল, ঢাকা : বর্তমান বিশ্ব শ্রমবাজারে বাংলাদেশকে টিকে থাকতে হলে দক্ষ জনশক্তি রপ্তানির বিষয়টি গুরুত্বসহকারে আমলে নিয়ে সে অনুযায়ী কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে এবং এর কোনো বিকল্প নেই। তবে এ ক্ষেত্রে ‌তার ব্যত্যয় ঘটছে।

বর্তমান বৈশ্বিক মন্দারকালে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শ্রমবাজার ধরে রাখার পাশাপাশি নতুন নতুন শ্রমবাজারের সন্ধান বাংলাদেশের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। যে করেই হোক বাংলাদেশকে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে।

একই সঙ্গে অভিবাসন ব্যয় হ্রাস, দক্ষ জনশক্তি রপ্তানি, অভিবাসনের পর কর্মীদের সহযোগিতা দান এবং দূতাবাসগুলোকে যথাযথভাবে কাজে লাগানোর ব্যাপারে সরকারকে আরও অধিক মনোযোগী হতে হবে।

এক প্রতিবেদনে প্রকাশ, আনুপাতিকহারে নারীকর্মী পাঠানোর শর্ত পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিদেশে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় কর্মক্ষেত্র সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যের শ্রমবাজার বড় ধরনের হুমকির মুখে পড়েছে। শুধু গত বছরের ডিসেম্বরেই ৫০ হাজার পুরুষকর্মীর পাসপোর্ট জমা নেয়নি সৌদি দূতাবাস। পরবর্তী মাসগুলোয়ও এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। এ অবস্থায় সে দেশে শ্রমিক রপ্তানিতে ভয়াবহ ধস নেমেছে।

গত ডিসেম্বর থেকে সৌদি দূতাবাস প্রতি ১০০ জনে ২৫ জন নারী ও ৭৫ জন পুরুষের পাসপোর্ট জমা না দিলে পুরুষকর্মীদের পাসপোর্ট জমা নেয়া বন্ধ করে দেয় সংশ্লিষ্ট দূতাবাস। দেশের রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো আনুপাতিক হারে নারীকর্মী জোগাড়ে ব্যর্থ হওয়ায় হাজার হাজার পুরুষকর্মীর পাসপোর্ট আটকে যাচ্ছে। ফলে দেশটির বিশাল শ্রমবাজারে প্রবেশের ক্ষেত্রে বড় ধরনের হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আমরা মনে করি এই অবস্থার দ্রুত অবসান হওয়া জরুরি। কারণ বাংলাদেশ যদি শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয় এবং সৌদি দূতাবাস যদি নারী-পুরুষ আনুপাতিক হারকে অধিকহারে গুরুত্ব দিয়ে কঠোর অবস্থানে থাকে তা হলে শ্রমিক রপ্তানির ক্ষেত্রে বড় ধরনের ধস নামবে। যা রেমিটেন্সের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

মনে রাখতে হবে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রেখেছে প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠানো রেমিটেন্সপ্রবাহ। সুতরাং বিদেশে জনশক্তি রপ্তানিতে যাতে কোনোরকম ব্যত্যয় না ঘটে সেদিকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে বিশেষ মনোযোগ দেয়া অতীব জরুরি।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে বাংলাদেশের শ্রমিকদের যথেষ্ট চাহিদা থাকা সত্ত্বেও আমরা বিভিন্ন সময়ে শ্রমিক রপ্তানি করতে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছি। এর পাশাপাশি রয়েছে প্রবাসে বাংলাদেশি শ্রমিকদের নানা ধরনের অপরাধপ্রবণতা। ফলে বিদেশি বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। বাংলাদেশের শ্রমিকরা যেসব দেশে কর্মরত রয়েছে ওইসব দেশের বাংলাদেশ দূতাবাস কী করছে?

অপরাধকর্ম ছাড়াও অনেক শ্রমিকই মানবেতর জীবনযাপন করছে, অনেকেই প্রতারিত হচ্ছে। এসব বিষয়েও সরকারকে তদারকিতে আনতে হবে।

অপরাধপ্রবণতা ছাড়াও দক্ষ শ্রমিকের অভাবে বাংলাদেশ অনেক দেশের শ্রমবাজার হারাচ্ছে। নতুন নতুন বাজার সন্ধানের পাশাপাশি শ্রমবাজার ধরে রাখার চেষ্টা চালাতে হবে। কারণ বিদেশে কর্মরত বিপুলসংখ্যক শ্রমিক যদি বেকার হয়ে দেশে ফিরে আসে তখন কী হবে? এমনিতেই তো দেশে কর্মসংস্থানের দারুণ অভাব। সুতরাং বাড়তি চাপ সহ্য করা খুবই কঠিন। এ বিষয়েও সরকার ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে ভাবতে হবে।

জনশক্তি রপ্তানি প্রক্রিয়া স্বচ্ছ ও ত্রুটিমুক্ত করতে পররাষ্ট্র, প্রবাসী কল্যাণ, শ্রম ও জনশক্তি মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে সম্মিলিতভাবে কাজ করাও জরুরি। দূতাবাসগুলোয় কর্মরতদের অদক্ষতার বিষয়টি আমলে নেয়া উচিত। দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও প্রবৃদ্ধির কথা বিবেচনায় এনে সরকার অবিলম্বে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।
সর্বশেষ সংবাদ
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
উপরে