প্রকাশ : ০৯ এপ্রিল, ২০১৭ ০২:১১:০২
প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর দেশের জন্য সার্বিক সাফল্য বয়ে আনুক
বাংলাদেশ বাণী, ৯ এপ্রিল, ঢাকা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারত গিয়েছেন। মার্চের শেষ দিকে এ সফর চূড়ান্ত হওয়ার পর থেকে প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরেই নানা আলোচনা চলছে। সেই আলোচনায় উঠে এসেছে বাংলাদেশের বহুল আলোচিত এবং প্রত্যাশিত তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির বিষয়টি। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর চার দিনের এই সফরে মোট ৩৩টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রস্তুতি রয়েছে বলে পররাষ্ট্র দপ্তর সূত্রে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

তাই প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে বাংলাদেশের প্রাপ্তি কী হবে সে বিষয়টিকে ঘিরে দেশবাসীর আগ্রহ ও উদ্বেগের শেষ নেই। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে উভয় দেশের আন্তরিক ও সহযোগিতামূলক সম্পর্ক আরও সম্প্রসারিত হলে সফর সার্থক হবে বিশেষজ্ঞরা এমনটিই মনে করছেন।

আমরা সবাই জানি যে বাংলাদেশ-ভারত প্রতিবেশী দুটি বন্ধুপ্রতিম দেশ। তাই উভয় দেশের মধ্যকার সম্পর্কও বেশ উষ্ণ। তবে স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট কোনো কোনো বিষয়ে যে টানাপড়েন নেই, সেটাও আমরা অস্বীকার করি না। বাস্তবতা হলো, বাংলাদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট অনেক বিষয়ে ভারত প্রতিশ্রুতি দেয়ার পরও তারা তা পূরণ করতে সমর্থ হয়নি।

আমরা লক্ষ করেছি, সে দেশের সংবিধানে সংশোধনী আনার পরও তিস্তা পানি বণ্টন চুক্তির গতি হয়নি, যা অত্যন্ত পীড়াদায়ক। অথচ নির্বাচিত হয়েই বাংলাদেশ সফরে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ ব্যাপারে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এ ছাড়াও আমরা দেখেছি, দেশটির প্রতিশ্রুত সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার ক্ষেত্রেও কোনো অগ্রগতি পরিলক্ষিত হয়নি।

ইতিমধ্যে ট্রানজিট সুবিধাসহ ভারতকে প্রায় সব সুবিধা দেয়া হলেও বাংলাদেশের কাক্সিক্ষত চুক্তিগুলো সম্পাদন এবং সম্পাদিত চুক্তির শতভাগ বাস্তবায়ন না হওয়া এক বেদনাদায়কই বটে। এরপরও ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, শেখ হাসিনার এবারের সফর কোনো সাধারণ সফর নয়। আমরাও মনে করি সম্ভাব্য চুক্তিগুলো সম্পাদনের মধ্য দিয়ে উভয় দেশের সম্পর্ক আরও গতিশীলতা লাভ করুক।

আমরা জানি যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বশেষ ২০১০ সালের জানুয়ারিতে ভারত সফর করেন। আর ২০১৫ সালের জুনে বাংলাদেশ সফর করেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এরপর আন্তর্জাতিক নানা বৈঠকে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী পার্শ্ববৈঠক করেছেন বলেও গণমাধ্যমে খবর এসেছে।

এ কথা অস্বীকার করার সুযোগ নেই যে, বাংলাদেশ-ভারতের পারস্পরিক সম্পর্কের মধ্যে তিস্তা নদীর পানি বণ্টন চুক্তি শেলের মতো বিঁধে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে নীতিমালা অনুসরণ করে দুই দেশের মধ্যে অন্যান্য চুক্তির সঙ্গে বহুপ্রতীক্ষিত তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে, এটিও দেশবাসীর প্রত্যাশা। এটা ঠিক যে, দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের স্বার্থে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়া এখন একটি অত্যাবশ্যকীয় শর্ত হয়ে উঠেছে।

তথ্যমতে, তিস্তা চুক্তিতে অনীহা প্রকাশ করা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন। আমরা আশা করব, ভারত বিষয়টি অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গেই দেখবে।
জানা যায়, অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত না হওয়ায় তিস্তা চুক্তি অনিশ্চতায় পড়েছে বলে ভারতের পররাষ্ট্র সূত্র উল্লেখ করেছে। তাই তিস্তা চুক্তি প্রসঙ্গে ভারত এই প্রসঙ্গটিই বার বার সামনে আনে।

সুতরাং এমন ভাবনা অযৌক্তিক নয় যে, এটাকে পুঁজি করে বাংলাদেশকে কৌশলে বঞ্চিত করছে দেশটি। সদিচ্ছা থাকলে দেশের প্রতিশ্রুতি রক্ষার্থে রাজনৈতিক মতপার্থক্য দূর হওয়াও অসম্ভব নয়, এ বিষয়টিও বোদ্ধা মহলে আলোচিত হচ্ছে।

জানা গেছে, সম্ভাব্য ৩৩টি চুক্তি ও সমঝোতার মধ্যে প্রতিরক্ষা খাতে সহযোগিতামূলক চারটি সমঝোতা স্মারক রয়েছে। ভারতের প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও তিস্তা চুক্তি না হয়ে বাংলাদেশে যখন মরুকরণ প্রক্রিয়া চলছে, তখন সামরিক সহযোগিতা চুক্তি কতটা গুরুত্বপূণ সে বিষয়টিও বাংলাদেশের ভেবে দেখা উচিত।

সর্বোপরি আমরাও প্রত্যাশা করি, উভয় দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও উষ্ণ হোক। ব্যবসা-বাণিজ্য, উন্নয়নসহ অন্যান্য বিষয়ে দুই দেশের সম্পর্ক আরো গতিশীল হোক। এ কথা আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে, বর্তমানে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে সবচেয়ে ভালো। ভারতও বিষয়টি স্বীকার করেছে।

তাই আমাদের প্রত্যাশা, পরস্পরের মধ্যে এবং একই সঙ্গে আঞ্চলিক ভিত্তিতে সহযোগিতার পথ অনুসরণ করেই যাবতীয় চুক্তি সম্পাদনের পথে এগোতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর বর্তমান সফর সার্বিক সাফল্য বয়ে আনুক, এটাই আমাদের কামনা।
সর্বশেষ সংবাদ
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
উপরে