প্রকাশ : ২৯ মে, ২০১৭ ০২:৩৬:৩৬
তীব্র দাবদাহের কারণে বাড়ছে শিশু রোগী সংখ্যা, সতর্কতা প্রয়োজন
বাংলাদেশ বাণী, ঢাকা, ২৯ মে : গত কয়েক দিন ধরেই চলছে তীব্র দাবদাহ। এই গরমে যেন জনজীবনই ওষ্ঠাগত। অতিরিক্ত গরমের কারণে নানা ধরনের দুর্ভোগে বিপর্যস্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষের জীবন। ভুগতে হচ্ছে নানা রকম অসুখ-বিসুখেও। হাসপাতালগুলোতেও ভিড় বাড়ছে রোগীর। আর যখন প্রচন্ড দাবদাহে শিশুরোগীর সংখ্যা বাড়ছে তখন তা সন্দেহাতীভাবেই উদ্বেগজনক পরিস্থিতির ইঙ্গিত বহন করে।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে, স্বাভাবিকভাবেই এই পরিস্থিতিতে শিশুদের বিশেষ যত্ন নিতে হবে, রোদ থেকে দূরে রাখার পাশাপাশি তাদের গায়ে যাতে ঘাম না জমে, সেটি খেয়াল রাখতে হবে। বাতাসে রাখা ছাড়াও জ্বর বা কোনো অসুখ দেখা দিলে দেরি না করে ডাক্তারের কাছে নেয়ার পরামর্শও দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

আমরা মনে করি, এহেন পরিস্থিতিতে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সংশ্লিষ্টদেরকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে কার্যকর পদক্ষেপ নিশ্চিত করার বিকল্প নেই।
পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা যাচ্ছে যে, গত কয়েক দিনের তীব্র দাবদাহের কারণে রোগী বাড়ছে। মূলত জ্বর, টাইফয়েড, আমাশয় ও ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যাই বেশি। আর যেখানে কিছুদিন আগেও হাসপাতালের বেশকিছু বিছানা ফাঁকা থাকতো সেখানে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে যে, ফাঁকা তো নেই, উপরন্তু স্থান সংকুলান না হওয়ায় রোগীদের ফিরে যেতে হচ্ছে।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের একজন সিনিয়র জনসংযোগ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আগে যেখানে প্রতিদিন গড়ে ৬০০ থেকে ৬৫০ রোগী আসত, এখন সেখানে ৮০০ থেকে ৮৫০ রোগী আসছে। মূলত গত এক দেড় সপ্তাহ ধরে গরম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে এমনটি জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, আমরা বলতে চাই, এই বিরূপ আবহাওয়াকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট পরিস্থিতি সামগ্রিকভাবেই উৎকণ্ঠার। ফলে, অভিভাবক সচেতনতা বৃদ্ধির বিষয়টি যেমন জরুরি, তেমনি সরকার সংশ্লিষ্টদেরও যথাযথ উদ্যোগ জারি রাখতে হবে। এটা সত্য যে, বিপুল জনসংখ্যার এই দেশে চিকিৎসা নিশ্চিত করা সহজ নয়। এ ছাড়া চিকিৎসক এবং চিকিৎসা সরঞ্জামাদির সংখ্যাও প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। ফলে, পরিস্থিতি অনুযায়ী সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে এ সংক্রান্ত পরিস্থিতি মোকাবেলায় কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া অপরিহার্য। বিশেষ করে যেভাবে একের পর শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়ছে, এই বিষয়টি আমলে নিয়ে সংশ্লিষ্টরা বিশেষ নজর দেবে এমনটি আমাদের কাম্য।

উল্লেখ্য যে, বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসকরা চিকিৎসা দিচ্ছেন এবং প্রতিদিন অসংখ্য রোগী ফেরত যাচ্ছে এমন ঘটনা যেমন ঘটছে, তেমনিভাবে জরুরি হলে অন্য হাসপাতালে পাঠানোরও ব্যবস্থা করছেন। এ ছাড়া জানা গেছে, চিকনগুনিয়া রোগীদেরও সাধারণ রোগীদের মতো চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আর এটা নিয়ে যাতে কোনো বিভ্রান্তি না ছড়ায় এই বিষয়টিও বিশেষভাবে নজর দেয়া হচ্ছে।

আমরা বলতে চাই, এই সময়ে যে দুঃসহ গরমের মধ্য দিয়ে মানুষকে জীবনযাপন করতে হচ্ছে তার ফলে জ্বর, ডায়রিয়া থেকে শুরু করে নানা অসুখ-বিসুখ বৃদ্ধির কারণে চিকিৎসা নিশ্চিত করা কঠিন হয়ে পড়ে। আবার যদি শিশু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে তবে তা স্বাভাবিকভাবেই এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। আমরা মনে করি, প্রয়োজনে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালাতে হবে, বিশেষ করে এই সময়গুলোতে করণীয়র বিষয়টি তুলে ধরে অভিভাবকদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে।

সর্বশেষে আমরা এ কথাই বলতে চাই যে, চলতি তাপপ্রবাহে শিশুদের প্রতি বিশেষ যত্ন নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন শিশু বিশেষজ্ঞরা, সেটি আমলে নিয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নিশ্চিত করা জরুরি। মনে রাখা সঙ্গত, শিশুদের পোশাক থেকে শুরু করে খাওয়া-দাওয়া সবদিকে নজর দেয়া হলে এই পরিস্থিতি অনেকাটাই মোকাবেলা করা সম্ভব হবে।

সামগ্রিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে চিকিৎসা ব্যবস্থাকে আরো এগিয়ে নেয়া এবং এই গরমের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলায় সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে এমনটি আমাদের সময়ের প্রত্যাশা।

 
সর্বশেষ সংবাদ
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
  • সিকান্দারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে : স্বাগতিকরা ৪০ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্সকেইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনি মধ্যপ্রাচ্যের ‘নয়া হিটলার’ : সৌদি যুবরাজবঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের স্বীকৃতি যথাযথ মর্যাদায় সারা দেশে উদযাপন আজআওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের সত্যিকার উন্নতি হয় : প্রধানমন্ত্রী দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন শেষ হয়েছেজার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও
উপরে