প্রকাশ : ১২ আগস্ট, ২০১৭ ০২:২৯:৩১
শিশু ও নারী নির্যাতকদের কঠোরভাবে দমন করতে হবে
বাংলাদেশ বাণী, ঢাকা : শিশু ও নারী নির্যাতনের একটি ঘটনার বিহ্বলতা কাটাতে না কাটাতেই আমাদের চোখে-কানে বিষ ঢেলে দিচ্ছে অন্য একটি ঘটনা। সাম্প্রতিক সময়ে শিশু ও নারী নির্যাতনের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বেড়ে গেছে। ধর্ষণের পর হত্যা যেন ধর্ষকদের হিংসা চরিতার্থের আরও একটি পদ্ধতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ প্রায় সারাদেশে শিশু ও নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে।

কোনো কোনো ধর্ষণের ঘটনা ঘটানো হচ্ছে পূর্বপরিকল্পিত উপায়ে প্রলোভনসহ নানা ধরনের ফাঁদ পেতে। কোনো কোনো নারী ধর্ষণের কয়েকটি ঘটনায় সমাজের বিত্তবান প্রভাবশালীরা জড়িত থাকে। তবে আশার কথা হচ্ছে, ধর্ষণ বিষয়ে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির কিছুটা হলেও পরিবর্তন হয়েছে।

আগে সমাজ বা লোকলজ্জার ভয়ে ধর্ষণের শিকার হওয়া নারীটি বা তার পরিবার আইনের আশ্রয় নিতে এগিয়ে আসত না। এখন সে চিত্র পালটে গেছে। সমাজবিজ্ঞানীরা বারবার বলছেন, ধর্ষণের শিকার হওয়া অন্যান্য দুর্ঘটনার মতোই একটি ঘটনা। যে ধর্ষণের শিকার হয়, তার কোনো অপরাধ থাকে না। তারপরও ধর্ষণের শিকার হওয়া নারীদের কেউ কেউ লজ্জার হাত থেকে বাঁচতে আত্মহননের পথ বেছে নেয়, যা কখনও গ্রহণযোগ্য নয়। ধর্ষিতাকে আইনগত সাহায্য-সহযোগিতার ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন এসেছে, যা ইতিবাচক ফলাফল ঘটাবে বলে মনে করছেন সমাজবিশ্লেষকরা।

সম্প্রতি এক প্রতিবেদন থেকে শিশুর প্রতি পাশবিকতার যে চিত্র পাওয়া যায়, তা যে কোনো সংবেদনশীল মানুষকে ব্যথিত ও উদ্বিগ্ন করবে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর ৩৫২টি শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। প্রতিবেদনে পাওয়া পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, যত দিন যাচ্ছে, শিশু ধর্ষণের ঘটনা তত বাড়ছে।

২০১১ সালে শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল ৮৬টি, পরের বছর তা দাঁড়িয়েছে ১৭০টিতে। ২০১৪ সালে বেড়ে হয়েছে ১৯৯টি। পরের বছর শিশু ধর্ষণের সংখ্যা ছিল ৫২১। গত বছর তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০১টিতে। প্রত্যাশিত ছিল শিশু ধর্ষণের ঘটনা কমে আসার, কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক সত্যটি হচ্ছে তা বাড়ছে। শিশু ও নারী নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক। ন্যায়বিচার নিশ্চিত না হওয়াকে এর জন্য দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান।

সমাজের বিশিষ্টজনরা বলছেন রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন, পেশিশক্তি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের ফলে সমাজে বখাটেদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে। এতে ধর্ষণ, শিশু ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা বাড়ছে।

সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে শিশু ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে সমাজের সকল অংশকে এগিয়ে আসতে হবে। এতে ব্যর্থ হলে সমাজে এর দীর্ঘস্থায়ী এবং মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। কাজেই শিশু ও নারী নির্যাতকদের কঠোরভাবে দমন করতে হবে। আইনের যথাযথ প্রায়োগিক ইতিবাচকতায় ধর্ষণ ঘটনার প্রত্যেককে শাস্তি দিতে হবে। এক্ষেত্রে কোনো প্রকার শৈথিল্য থাকা চলবে না বলে আমরা মনে করছি ।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ প্রণয়নবিশ্ব ভালবাসা দিবসে অমর একুশের গ্রন্থমেলায় দর্শনার্থীদের ঢলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই উন্নত দেশে পরিণত হবে : সরকারি দলরোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা নিরসনে ইইউ বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর রূপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি’র আদেশআদালতের আদেশ অনুযায়ী কারাগারে ডিভিশন পেলেন খালেদা জিয়াভারতীয় গণমাধ্যমের মন্তব্য খালেদার দণ্ড হাসিনাকে শক্তিশালী করেছেএকুশের বই মেলায় প্রাণ এসেছে : বেড়েছে বিক্রি জনগণের জানমাল রক্ষায় যতদিন প্রয়োজন ততদিনই পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে : আইজিপি‘রায়ের কপি হাতে পেলেই হাইকোর্টে আপিল করা হবে’তারেকসহ অন্যদের ১০ বছর কারাদন্ড-জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায় : সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ৫ বছর জেল ভীত হবেন না : আশ্বস্ত করছি ৮ ফেব্রুয়ারি কিছু হবে না : আইজিপি রাষ্ট্রপতি পদে এ্যাড. মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিলবিএডিসি ও পিআইবি আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভাবিএনপিসহ সবদল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে : সিইসি'র আশাবাদরাষ্ট্রপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছেনরক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয় ! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে : বাহাদুর বেপারীশুরু হলো বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলারক্তঋনে কেনা, কারো দানে নয়! ‘অমর একুশের সিঁড়ি বেয়ে আমার বাংলা মায়ের কোল’
উপরে