প্রকাশ : ২৯ মে, ২০১৫ ১৪:৪৭:২২
পানি ও খাবারে সাবধান
'গরমে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি'

বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম : গরমে বাড়ছে অস্বস্তি। দেখা দিচ্ছে নানা শারীরিক সমস্যা। এর মধ্যে ডায়রিয়ার প্রকোপ অন্যতম। গরমের সময় খাবার অন্যান্য মৌসুমের চেয়ে খুব সহজেই জীবাণুযুক্ত হয়। এতে মানুষের নানা রকম পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হওয়ার পরিমাণ বেড়ে যায়। কাজেই এ সময় খাওয়া-দাওয়া ও জীবনযাপনে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। তবেই গরমজনিত বিভিন্ন সমস্যা থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।
রাজধানীর মহাখালীর আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশে (আইসিডিডিআরবি) পেটের পীড়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। রোগীর সংখ্যা প্রতিদিন গড়ে ১০০ থেকে ১৫০ জন রোগী বেশি আসছে। চিকিৎসকেরা বলছেন, গরমে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি। সতর্ক থাকলে এ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। বৃহস্পতিবার আইসিডিডিআরবির উদরাময় ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, দুপুর ১২টা পর্যন্ত ১৭৩ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী, গরম বাড়ার পর থেকে প্রতিদিন গড়ে ৪৫০ জন রোগী এখানে ভর্তি হচ্ছেন। অন্যান্য সময় ২৫০ থেকে ৩৫০ জন রোগী ভর্তি হন। এপ্রিল মাসের শেষের দিকে রোগীর সংখ্যা আরও বেশি ছিল। ওই সময় গড়ে ৬০০ থেকে ৭০০ জন রোগী ভর্তি হয়েছে। কেবল রাজধানীর রোগীরা যে এখানে ভর্তি হচ্ছে, তা এমন নয়। ঢাকার আশপাশের এলাকা, যেমন নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর থেকেও প্রচুর রোগী আসে।
গরমে কেন বেশি আক্রান্ত হয়: আইসিডিডিআরবির জ্যেষ্ঠ চিকিৎসা কর্মকর্তা এ এম রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, সাধারণত মে-জুন মাসে মৌসুমি বৃষ্টিপাত শুরু হওয়ার আগে এবং সেপ্টেম্বর-নভেম্বর সময়ে মৌসুমি বৃষ্টিপাত শেষ হওয়ার সময় মানুষ ডায়রিয়ায় বেশি আক্রান্ত হয়। তিনি বলেন, গরমে মানুষের তৃষ্ণা বেশি পায়। এ জন্য পানিও বেশি পান করে। তৃষ্ণার্ত অনেকে পানি পানের সময় বিশুদ্ধতা নিয়ে তেমন মাথা ঘামায় না। এতে জীবাণুযুক্ত পানি পানের আশঙ্কা বেড়ে যায়। আর মূলত পানির মাধ্যমেই কলেরা জীবাণু ও খোঁটা ভাইরাস ছড়ায় বলে এ সময় ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায়।
এ সময়ে আরেকটি সমস্যা হলো, গরমে খাবার দ্রুত নষ্ট হয় বা টকে যায়। এমন খাবার খেয়ে ফেললে সেখান থেকেও পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অনেকে সমস্যার বিষয়টি আমল না দিয়ে টকে যাওয়া খাবার খায়। দুস্থ ও নিম্নবিত্ত মানুষ বেশির ভাগ সময় নিরুপায় হয়ে এসব খাবার খেতে বাধ্য হয়।
ডায়রিয়া প্রতিরোধে করণীয়: এ সময় ডায়রিয়া থেকে রক্ষা পেতে পানি নিয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিলেন চিকিৎসকেরা। শুধু খাওয়ার পানিই নয়, খাবার তৈরিতে ব্যবহার্য লক্ষ্যে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা।
রফিকুল ইসলাম গুরুত্ব দিলেন খাওয়ার আগে ও বাথরুম থেকে বের হয়ে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার সাধারণ নীতির ওপর। বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে এ বিষয়টি নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
ডায়রিয়া হলে করণীয়: ডায়রিয়া হলে রোগীকে যত দ্রুত সম্ভব খাওয়ার স্যালাইন খাওয়ানো শুরু করতে হবে। তা হতে হবে নিয়মিত। রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের এখানে অনেকে নিয়ম মেনে স্যালাইন খান না। এতে হিতে বিপরীত হয়। যেমন এক প্যাকেট স্যালাইন আধা লিটার পানির সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ানোর নিয়ম থাকলেও অনেকে কম বা বেশি পরিমাণ পানির সঙ্গে মিশিয়ে ফেলেন।’ তিনি বলেন, ওরস্যালাইন ওষুধ। একে ওষুধের মতোই পরিমিত পরিমাণে সময় মেনে খাওয়াতে হবে। লম্বা সময় ধরে পাতলা পায়খানা বন্ধ না হলে দ্রুত নিকটবর্তী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যেতে হবে।
বিবি/সা/ডেস্ক/ঢাকা/২৯/০৫/২০১৫
সর্বশেষ সংবাদ
  • বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ : বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি, সোমবার শাহবাগে ‘আনন্দ উৎসব ও স্মৃতিচারণ’ আজ বসছে দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন
  • বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ : বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি, সোমবার শাহবাগে ‘আনন্দ উৎসব ও স্মৃতিচারণ’ আজ বসছে দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন
উপরে