প্রকাশ : ২৯ মে, ২০১৭ ১৬:১৯:৩৯
প্রতিদিনকার ইফতারে আপনার জন্য কিছু স্বাস্থ্যকর তথ্য
বাংলা্দেশ বাণী, লাইাফস্টাইল ডেস্ক : ইসলামিক ঐতিহ্য অনুযায়ী রমজান মাস সবচেয়ে পবিত্র মাস। সারা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় এই মাসে রোজা রাখেন। রোজা রাখার উদ্দেশ্যে সূর্যোদয়ের আগে সেহরি খাওয়া হয় এবং সূর্যাস্তের পরে ইফতার করা হয়।

ঐতিহ্যগতভাবেই ইফতারের সময় খেজুর এর সাথে পানি, দুধ বা জুস গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ইফতারের জন্য বিভিন্ন ধরনের চমৎকার সব খাবার প্রস্তুত করা হয়।

আফগানিস্তানের মানুষ ইফতারির জন্য স্যুপ তৈরি করেন, পেঁয়াজ দিয়ে মাংসের তরকারি রান্না করেন, কাবাব ও পোলাউ তৈরি করেন। আমাদের এই উপমহাদেশে মিষ্টি পানীয়, হালিম, জিলাপি, পরটা, পোলাও, মাংসের তরকারি, ফলের সালাদ, শামি কাবাব,  পিঁয়াজু, বেগুনী এবং আরো অনেক মুখরোচক খাবার তৈরি করা হয়। সারাদিন রোজা রাখার  পর ইফতারিতে ও রাতের খাবারে যখন মাংস সমৃদ্ধ ও চর্বি জাতীয় ভারী খাবার বেশি খাওয়া হয় তখন তা পরিপাক তন্ত্রের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে এবং পেট ফাঁপার সমস্যা তৈরি করতে পারে। যাতে এ ধরনের কোন সমস্যায় পড়তে না হয় সেজন্য কিছু স্বাস্থ্যকর টিপস জেনে নিন...।

১। খাবারের সাথে ফল মেশাবেন না :
রোজা ভাঙার সময় ফল খান অথবা খাবার খাওয়ার পরে ফল খান। অন্য খাবারে উপস্থিত খনিজ, চর্বি ও প্রোটিনের সাথে যখন ফল যুক্ত হয় তখন তা হজমে বাঁধার সৃষ্টি করে।

২। সামুদ্রিক খাবার, বাদাম ও মাংসের সাথে পনির যোগ করবেন না :
একবারে উচ্চ ঘনত্বের এক ধরনের প্রোটিনকে হজম করার জন্য আপনার শরীর প্রোগ্রাম করা। তাই একবারে একের অধিক প্রোটিন গ্রহণ করলে তা আপনার পরিপাক তন্ত্রের জন্য জটিলতা সৃষ্টি করে।

৩। সাইট্রাস ফলের সাথে দুধের তৈরি খাবার মিশ্রিত করা এড়িয়ে চলুন :
প্রোটিন ও স্টার্চ একসাথে যোগ করা কোন ভালো ধারণা নয়। চর্বিহীন মাংসের সাথে তাজা সবজি খেয়ে ভারসাম্য রক্ষা করতে পারেন।

সহজ ভাবে নিন :
আপনার খাবার শেষ করার জন্য তাড়াহুড়া করবেন না। সারাদিন রোজা রাখার পর যদি একসাথে অনেক বেশি খাবার খেয়ে ফেলেন তাহলে বদহজম ও গ্যাস্ট্রিকের অন্য সমস্যা হতে পারে। ইফতারের শুরুতে ফল, দই, শরবত বা স্মুদির মত তরল খাবার গ্রহণ করুন।  এর বেশ কিছুক্ষণ পরে মূল খাবার খান। এর ফলে আপনার পাকস্থলী কিছুটা সময় পাবে নিজেকে প্রস্তুত করার জন্য। ফলে সে ঠিকভাবে কাজ করতে পারবে।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
উপরে