প্রকাশ : ২০ নভেম্বর, ২০১৭ ২২:৫৩:১৬
পাইলগাঁও ইউপি’র বসতবাড়ি বিলিন হচ্ছে কড়ালগ্রাসী কুশিয়ারা নদীতে
বাংলাদেশ বাণী, জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : নদীমাতৃক বাংলাদেশে নদী ভাঙ্গন যেন নিয়মিত ঘটনারই অংশ। প্রতিবছর ছোট বড় নদীগুলোতে ভাঙ্গনের চিত্র দেখাই যায়। নদীর এক পাড় ভাঙ্গে অপর পাড় গড়ে এটাই নিয়তির খেলা। তবে নদী ভাঙ্গনের কিছু কিছু চিত্র আছে যা আজীবন কোন জনপদে আতঙ্ক হিসেবে রয়েই যায়।

প্রবাহমান কড়ালগ্রাসী কুশিয়ারা নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ জনবহুল গ্রাম হচ্ছে রানীনগর ও জালালপুর। অব্যাহত ভাঙ্গনের ফলে ওই জনপদে শুধু ভাঙ্গন আতঙ্কই এখন বিরাজমান।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, এ দুটি গ্রামের মসজিদ, মাদ্রাসা, বসতবাড়ি, রাস্তাঘাট, বনজসম্পদ সহ আবাদি জমিগুলো নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে। কুশিয়ারা নদীর জন্মলগ্ন থেকেই ভাঙ্গনে বৃহত্তর রানীনগর ও জালালপুর গ্রামটির মানচিত্র পাল্টে যায়। নদী ভাঙ্গনে জালালপুর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সোনাতলা, কদমতলা, পূর্ব জালালপুর, রানীনগর ও ছৈদপুর নামে এই ৫টি গ্রাম নামকরণ হয়।

ভাঙ্গনে মূলগ্রাম থেকে শত শত পরিবার বিচ্ছিন্ন হওয়ার পরও রানীনগর ও জালালপুর গ্রামে ৫ হাজারেরও বেশী মানুষের বসবাস রয়েছে। এছাড়াও অনেক পরিবার এলাকা ছেড়ে অন্যত্র বসতিস্থাপন করেছে। কুশিয়ারা নদীর ভাঙ্গনে জালালপুরের শুধু বসতবাড়িই বিলীন হয়নি, পুরনো স্থাপনা সহ শতবছরের নানা ঐতিহ্য বিলীন হয়ে গেছে। প্রায় ২০ বছর পূর্বে পাইলগাঁও ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জালালপুর গ্রামের মরহুম ছাইম উদ্দিনের বিশাল দালানঘরটি নদী গর্ভে বিলিন হয়। পূর্ব জালালপুরের মরহুম হাজী রজব আলী ও আছাব আলীর বসতবাড়ি দুই বার করে নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়। পূর্ব জালালপুর গ্রামের আছাব আলীর বসতবাড়ী এলাকা ভাঙ্গাবাড়ি হিসেবে পরিচিত ও বিচ্ছিন্ন ভাবে গড়ে উঠে রানীনগর গ্রাম।

জলালপুর গ্রামের আব্দুল হক মাস্টারের বাড়িটি কুশিয়ারার ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে ও রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আশরাফুল আলমের বাড়ী হুমকির সম্মুখিন এবং বসতবাড়ি হারানো অনেক পরিবার দিশেহারা হয়ে পড়েছে। গৃহহীন এসব পরিবার গুলোর জায়গাজমি না থাকায় মানবেতর জীবনযাপন করছে।

বর্তমানে পূর্ব জালালপুরে স্থাপিত ইউনিয়নের উপস্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিও আগ্রাসী কুশিয়ারা নদী ভাঙ্গন কবলের মুখে রয়েছে। এ গ্রামের উপর দিয়ে যাওয়া জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কটি এবছর নদী ভাঙ্গনের শিকার হলে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হয়।

বর্তমানে উপজেলার বৃহত্তর কাতিয়া গ্রামটিও নদী ভাঙ্গনে হুমকির সম্মুখীন। কুশিয়ারা নদী ভাঙ্গন অব্যাহত থাকায় নদীর তীরবর্তী জালালপুর ও রানীনগর গ্রামের প্রতিটি বসতবাড়ি নদী ভাঙ্গনের হুমকিতে রয়েছে। নদী ভাঙ্গন রোধকল্পে কার্যকর প্রদক্ষেপ গ্রহণে সরকারের প্রতি এলাকাবাসী জোর দাবী জানিয়েছেন।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অনাবাসিক দূতদের আলোচনা ও সমর্থনত্যাগের মহিমায় যোগ্য নাগরিক হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তুলেতে হবে : প্রধানমন্ত্রীমহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাসাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে বীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধাবিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে যান চলাচলে ডিএমপি’র নির্দেশনামহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীআজ মহান বিজয় দিবস : শোক আর রক্তের ঋণ শোধ করার গর্বে উজ্জীবিত জাতি দেশবরেণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেইমৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বিদেশে পলাতক যুদ্ধাপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : সেতুমন্ত্রীমিয়ানমারে সহিংসতা শুরুর প্রথম মাসেই অন্তত ৬ হাজার ৭ শ’ রোহিঙ্গাকে হত্যা : এমএসএফবিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় গোটা জাতি'র শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণআজকের সম্পাদকীয়- আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস : গোটা জাতি'র বিনম্র শ্রদ্ধা ৩ দিনের সরকারি সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী আজ দেশে ফিরবেন গেইলের বিধ্বংসী সেঞ্চুরি : ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৫৭ রানে হারালো রংপুর রাইডার্সকংগ্রেসের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে রাহুল গান্ধীর নাম ঘোষণা নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরি বিধি প্রকাশ করেছে সরকারআওয়ামীলীগের ওপর মানুষের বিশ্বাস ও সমর্থন বৃদ্ধি পেয়েছে : সজীব ওয়াজেদ জয় ‘অগ্নিকন্যা মতিয়া চৌধুরী নকলাকে কৃষিখাতে সফল বিপ্লবের সাফল্য দেখিয়েছেন’আগামী নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীআজ বেগম রোকেয়া দিবস : রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র পৃথক বাণী
  • রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অনাবাসিক দূতদের আলোচনা ও সমর্থনত্যাগের মহিমায় যোগ্য নাগরিক হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তুলেতে হবে : প্রধানমন্ত্রীমহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাসাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে বীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধাবিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে যান চলাচলে ডিএমপি’র নির্দেশনামহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীআজ মহান বিজয় দিবস : শোক আর রক্তের ঋণ শোধ করার গর্বে উজ্জীবিত জাতি দেশবরেণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেইমৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বিদেশে পলাতক যুদ্ধাপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : সেতুমন্ত্রীমিয়ানমারে সহিংসতা শুরুর প্রথম মাসেই অন্তত ৬ হাজার ৭ শ’ রোহিঙ্গাকে হত্যা : এমএসএফবিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় গোটা জাতি'র শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণআজকের সম্পাদকীয়- আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস : গোটা জাতি'র বিনম্র শ্রদ্ধা ৩ দিনের সরকারি সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী আজ দেশে ফিরবেন গেইলের বিধ্বংসী সেঞ্চুরি : ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৫৭ রানে হারালো রংপুর রাইডার্সকংগ্রেসের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে রাহুল গান্ধীর নাম ঘোষণা নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরি বিধি প্রকাশ করেছে সরকারআওয়ামীলীগের ওপর মানুষের বিশ্বাস ও সমর্থন বৃদ্ধি পেয়েছে : সজীব ওয়াজেদ জয় ‘অগ্নিকন্যা মতিয়া চৌধুরী নকলাকে কৃষিখাতে সফল বিপ্লবের সাফল্য দেখিয়েছেন’আগামী নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীআজ বেগম রোকেয়া দিবস : রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র পৃথক বাণী
উপরে