প্রকাশ : ১৭ মার্চ, ২০১৮ ০৩:৩৪:৪০
‘বাসযোগ্য ঢাকা গড়তে চার নদী রক্ষা করার দাবী’
বাংলাদেশ বাণী, ডেস্ক রিপোর্ট : কয়েকশ’ বছর আগে ঢাকাকে যখন রাজধানী হিসেবে নির্বাচন করা হয়, তখনবুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালু এই চার নদীকে বিশেষ বিবেচনায় রাখা হয়েছিল। ঐতিহাসিক, রাজনৈতিক ধারাবাহিকতায় ঢাকার জনপদকে সুজলা-সুফলা এবং সুরক্ষিত নাগরিক সভ্যতা গড়ে ওঠার মূলে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালু নদীর প্রবাহই প্রধান ভূমিকা রেখেছে।

এসব নদীর সুপেয় স্বচ্ছ পানি কৃষির সেচ, বাণিজ্যিক পরিবহন এবং মৎস্যের উৎস হিসেবে যুগ যুগ ধরে মানুষের চাহিদা পূরণ করে এসেছে। অথচ মাত্র কয়েক দশকের ব্যবধানে ঢাকার চারপাশের নদীগুলো সব উপযোগিতাই হারিয়ে ফেলেছে।

অপরিকল্পিত নগরায়ন ও শিল্পায়নের ফলে এসব নদী তার স্বাভাবিক গুণাগুণ হারিয়ে ফেলেছে। এমতাবস্থায় পরিবেশ আন্দোলনমঞ্চ এবং নোঙরসহ মোট ১২টি সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আজ ১৬ মার্চ, শুক্রবার, সকাল সাড়ে ১০ টায়, রাজধানীর হাজারীবাগ পার্ক থেকে বুড়ীগঙ্গার আদি চ্যানেল আভিমূখে “ঢাকার নদী ঢাকার প্রাণ, ঢাকা বাচাঁতে নদী বাচাঁন” দাবীতে নদীর জন্য পদযাত্রা এবং সমাবেশ কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়।

পদ যাত্রার শেষে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ আন্দোলন মঞ্চের  সভাপতি আমির হাসান মাসুদ পরিবেশ বাচঁাঁও আন্দোলন (পবা) র সহ-সম্পাদক মোঃ সেলিম, নোঙর এর সভাপতি সুমন শামস,সচেতন নগরবাসী সংগঠন এর সভাপতি রোস্তম খান, কবি বাঙ্গাল আবু সাঈদ স্মৃতি সংসদের সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান আলাল, গ্রীন মাইন্ড সোসাইটির সাধারন সম্পাদক মোঃ ফারুক হোসেন, বাংলাদেশ সাইকেল লেন বাস্তবায়ন পরিষদের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টুব্বুস, স্বচ্ছ ফাউন্ডেশন এর মহাসচিব আশরাফুল আলম,সোস্যাল লিংক ফর হিউম্যান রাইটসএর সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, আইনজীবি আজাদী আকাশ, অদম্য ফাউন্ডেশনের সভাপতি আইরিন আক্তার, নিরাপদ ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের মোঃ শাহিন, জন অধিকার ফাউন্ডেশনের জাহাঙ্গীর হোসেন, সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন, সাংবাদিক ইলিয়াস আহম্মেদ, নির্মূল কমিটির আব্দুল্লাহ প্রমূখ।

বক্তার বলেন, মোগলরা রাজধানী ঢাকার গোড়াপত্তন করেছিল ঢাকার মধ্য দিয়ে বয়ে চলা শতাধিক খাল এবং এর চারপাশে বহমান তুরাগ, বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা ও বালু নদী কে কেন্দ্র করে। এসব খাল এবং নদীই ছিল রাজধানী ঢাকার পরিবহন ও যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম। কিন্তুু ধীরে ধীরে আধুনিকতা ও উন্নয়নের নামে বিলীন করে দেওয়া হয়েছে ঢাকা শহরের প্রাণ স্বরূপ এসব খাল এবং নদীর অস্তিত্ব।

মানুষের নানা অপরিকল্পিত কর্মকান্ড নষ্ট করেছে নদীগুলোর সঙ্গে খালগুলোর সম্পর্ক। উন্নয়নের নামে নদী এবং খাল ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে বহুতল ভবন, ব্রিজ, রাস্তা, কালভার্ট, ড্রেন, উপাসনালয়। এতে নদী দূষিত হয়ে জলজ জীবের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে হচ্ছে। ঢাকা শহরের পানির চাহিদা পূরণের উৎস হওয়ার কথা ছিল বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালু নদীসহ ঢাকার অভ্যন্তরীণ খালগুলো। কিন্তু দখল-দূষণের কারণে এসব নদীর পানি ব্যবহার সম্ভব হচ্ছে না।

প্রতিদিন শত শত টন শিল্প-কারখানার তরল রাসায়নিক বর্জ্য নদীতে ফেলা হচ্ছে। ফলে ঢাকা শহরের পানির চাহিদা পূরণের জন্য নির্ভরশীল হতে হচ্ছে ভূগর্ভস্থ পানির ওপর। ঢাকায় এখন যে হারে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন করা হচ্ছে, কয়েক বছর পরে আর তা সম্ভব হবে না। ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ফলে ক্রমশ নিচে নেমে যাচ্ছে পানির স্তর এবং মাটি ও পানির স্তরের মধ্যে বিরাট ফাঁকা জায়গা তৈরি হচ্ছে। ফলে যে কোনো সময় সামান্য ভূমিকম্পেই  ঢাকা শহর দেবে যেতে পারে। তাই  ভূগর্ভস্থ  পানির ওপর আমাদের নির্ভরশীলতা কমিয়ে নদী-খালগুলো পুনরায় ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিতে হবে এখনই।

বর্তমানে ঢাকা শহরের অন্যতম সমস্যা জলাবদ্ধতা। এই জলাবদ্ধতা নিরসনে ঢাকার চারপাশের নদীগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারত। সামান্য বৃষ্টিতেই ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়, শুধু ড্রেনেজ সিস্টেমের মাধ্যমে এই জলাবদ্ধতার সমাধান সম্ভব নয়। এই সমস্যা সমাধান করতে হলে ঢাকার নদী ও খালগুলোকে সচল করতে হবে অন্যথায় ঢাকার অস্তিত্বই বিপন্ন হয়ে পড়বে।

প্রকৃতি, পরিবেশ, অর্থনীতি ও ভবিষ্যৎ উন্নয়নের স্বার্থে নদী রক্ষা করতে হবে। সরকারকেও নদীবান্ধব নীতি, কার্যক্রম গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করতে হবে। সবাইকে একত্র হয়ে নদী দখল ও দূষণকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ঢাকার চারপাশের নদী, খাল, হাউজিং প্রকল্পের নামে ভূমি দখলকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি নদী দূষণ ও দখলবাজি বন্ধের কাগুজে তৎপরতা এবং প্রতিশ্রুতির বদলে সত্যিকার ও ফলপ্রসূ উদ্যোগ গ্রহনের দাবী জানানো হয়।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • প্রধানমন্ত্রী আজ দু'দিনের সরকারি সফরে কলকাতা যাচ্ছেন সিটি কর্পোরেশন আচরণ বিধিমালায় ১১টি বিষয়ে সংশোধনের প্রস্তাব করেছে ইসিদু'দিনের সরকারি সফরে শুক্রবার কলকাতা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীআজ থেকে সিয়াম-সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান শুরুবাংলার লাল-সবুজের কন্যা শেখ হাসিনার ৩৮ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনপ্রাকৃতিক দুর্যোগে আঘাতপ্রাপ্তদের বেশি সহায়তা প্রদানের পরামর্শ সায়মা ওয়াজেদেরআগামীকাল শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে পবিত্র মাহে রমজানআবারও খুলনার নগরপিতা হলেন তালুকদার আব্দুল খালেক২৬ জুন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষণা জাতীয় সংসদের স্পিকার সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেনঐতিহাসিক স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু-১’ উৎক্ষেপণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ : বাংলাদেশের ৫৭ তম দেশের মর্যাদা অর্জনযথাযোগ্য মর্যাদার সাথে বিশ্বকবি রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী পালিতব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা-একনেকে'র সভায় খুলনা-দর্শনা ডাবল লাইন রেলওয়েসহ ১৩টি প্রকল্প অনুমোদনআজ প্রকাশিত হবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল নাটকে প্রতিফলিত হতে থাকে ঐতিহাসিক ও সমসাময়িক ঘটনাবলি : স্পিকারআজ ঢাকায় শুরু হচ্ছে ওআইসি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের ৪৫ তম সম্মেলনভারতে চলতি সপ্তাহে একের পর এক শক্তিশালী ঝড়ের আঘাত : নিহত ১৫০আজকের আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ ও শিলাবৃষ্টি হতে পারে।আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত ভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।
  • প্রধানমন্ত্রী আজ দু'দিনের সরকারি সফরে কলকাতা যাচ্ছেন সিটি কর্পোরেশন আচরণ বিধিমালায় ১১টি বিষয়ে সংশোধনের প্রস্তাব করেছে ইসিদু'দিনের সরকারি সফরে শুক্রবার কলকাতা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীআজ থেকে সিয়াম-সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান শুরুবাংলার লাল-সবুজের কন্যা শেখ হাসিনার ৩৮ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনপ্রাকৃতিক দুর্যোগে আঘাতপ্রাপ্তদের বেশি সহায়তা প্রদানের পরামর্শ সায়মা ওয়াজেদেরআগামীকাল শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে পবিত্র মাহে রমজানআবারও খুলনার নগরপিতা হলেন তালুকদার আব্দুল খালেক২৬ জুন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষণা জাতীয় সংসদের স্পিকার সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেনঐতিহাসিক স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু-১’ উৎক্ষেপণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ : বাংলাদেশের ৫৭ তম দেশের মর্যাদা অর্জনযথাযোগ্য মর্যাদার সাথে বিশ্বকবি রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী পালিতব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা-একনেকে'র সভায় খুলনা-দর্শনা ডাবল লাইন রেলওয়েসহ ১৩টি প্রকল্প অনুমোদনআজ প্রকাশিত হবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল নাটকে প্রতিফলিত হতে থাকে ঐতিহাসিক ও সমসাময়িক ঘটনাবলি : স্পিকারআজ ঢাকায় শুরু হচ্ছে ওআইসি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের ৪৫ তম সম্মেলনভারতে চলতি সপ্তাহে একের পর এক শক্তিশালী ঝড়ের আঘাত : নিহত ১৫০আজকের আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ ও শিলাবৃষ্টি হতে পারে।আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত ভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।
উপরে