প্রকাশ : ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৪:০০:১৮
৪৭ বছরেও নির্মিত হয়নি ত্রিমোহিনী বাজার সেতু : জনতার দুর্ভোগ
বাংলাদেশ বাণী, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি : স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৭ বছরেও নির্মিত হয়নি কেশবপুরের সীমান্তবর্তী ত্রিমোহিনী বাজারে কপোতাক্ষ নদের ব্রিজ। প্রতিদিন হাজারও যাত্রী, শত শত শিক্ষার্থীকে ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাকো পারাপার হতে গিয়ে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
নদের দু’পাড়ের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে ওই স্থানে ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছে। ফলে ব্রিজ নির্মাণ এখন দু’পাড়ের মানুষের কাছে প্রাণের দাবিতে পরিণত হয়েছে। কিন্তু তাদের দাবিটি দীর্ঘদিন ধরে উপেক্ষিত হয়ে আসছে।

জানা গেছে, কেশবপুরের ত্রিমোহিনী এলাকার মানুষকে বিভিন্ন প্রয়োজনে সাতক্ষীরার কলারোয়া অঞ্চলে এবং সাতক্ষীরার মানুষকে এ অঞ্চলে যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু একটি মাত্র সেতুর অভাবে এক কি. মি. পথ যেতে এসব মানুষকে ঘুরতে হয় প্রায় ২০ কিলোমিটার পথ। যা ভূক্তভোগীদের জন্য যেমন বিড়াম্বনার তেমনি সময়ও নষ্ট হয়। তাই এলাকার মানুষ প্রতিবারই উন্মুখ হয়ে থাকেন এবার না হলেও সামনের বার কোনো মন্ত্রী /এমপিরা অন্তত ব্রিজটি নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেবেন।

কেশবপুর সদর থেকে ১৩ কিলোমিটার পশ্চিমে ত্রিমোহিনী বাজারের পাশের কপোতাক্ষ নদের ওপর মাত্র আধা কিলোমিটার ব্রিজ নির্মাণ করা হলে কেশবপুর উপজেলাসহ কপোতাক্ষ নদ এলাকার মানুষকে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা শহরে যেতে ২০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হতো না। যার কারণে কপোতাক্ষ নদের ওপারের দেয়াড়া যাওয়াসহ তীরবর্তী এলাকার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থার কোনো উন্নয়ন ঘটেনি।

ত্রিমোহিনী বাজারের সাকোর পাশের দোকানদার স্বপন দত্ত জানান, প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির অনেক দূর, আর সে কথা বিবেচনা করে ঘাটের টোল তোলা বন্ধ করে কপোতাক্ষ নদ তীরবর্তী এলাকার দু’পারের মানুষ নিজেরা চাঁদা দিয়ে বাঁশ ক্রয় করে স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মাণ করেছেন, বাঁশের সাঁকো।

এ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিনই আতœীয়র বাড়ি যাওয়া, নিজেদের প্রয়োজনে কেশবপুর থেকে আসা পথচারী, ভ্যান, মোটরসাইকেল এবং ওপারের দেয়াড়া, খোরদো, বাটরা, পাকড়িয়া, বামনখালি, কামারারলিসহ ১০/১২ গ্রামের হাজারও যাত্রী সাধারণ যাতায়াত করে থাকেন।

ব্রিজ না থাকায় বাইসাইকেল, ভ্যান ও মোটরসাইকেলই তাদের একমাত্র বাহন। কিন্তু অর্থাভাবে দীর্ঘদিন ধরে বাঁশের সাকোটি মেরামত না করায় তা ভেঙ্গেচূরে নষ্ট হয়ে গেছে। এর ওপর দিয়ে ঝুকি নিয়ে ওপারের শত শত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীকে এপারের ত্রিমোহিনী বাজারের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করতে আসতে হয়। এছাড়া ভারতে যেতেও ওই সাকোটি ব্যবহার করতে হয় মানুষকে।    
হাজরাকাটি গ্রামের আবুল হোসেন বলেন, কপোতাক্ষ নদের ওপর ব্রিজ নির্মাণের দাবি দীর্ঘ দিনের হলেও সে দাবি বাস্তবায়নে কারো মাথা ব্যথা নেই। মাত্র আধা কিলোমিটার ব্রিজ নির্মিত হলে মানুষকে ২০ কিলোমিটার দুরত্ব অতিক্রম করতে হতো না। এখানকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পেতো।

প্রতিবারের মতো এবারও উভয় পারের মানুষ অধির আগ্রহ নিয়ে তাকিয়ে আছেন আগামী সংসদ নির্বাচনের প্রার্থীদের আশ্বাসের দিকে। কবে হবে সেতুটি নির্মাণ ? এমন খবরে কপোতাক্ষ নদ তীরবর্তী এলাকার মানুষ আশায় বুক বাঁধছে যদি সেই নেতার মুখ দিয়ে আসে কাঙ্খিত ঘোষণাটি।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মো. মুনছুর আলী বলেন, ওই স্থানে ব্রিজটি নির্মাণের জন্যে কয়েকবার প্রাক্কলন করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। কর্তৃপক্ষ অনুমোদন দিলে ব্রিজটি নির্মাণ হবে।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • সাগর পথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় নারী ও শিশুসহ ৬৭ জন রোহিঙ্গা উদ্ধারআদায় করা হচ্ছে বাড়তি ভাড়া : বাস টিকিটের জন্য হাহাকার বাড়ছে সৌম্য-মোসাদ্দেকের বিধ্বংসী ব্যাটিং : ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০৫৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আজ মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিননিরপেক্ষভাবে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের প্রতি সিইসি’র নির্দেশ৬টি সংসদীয় আসনের সবকটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে : ইসি সচিবওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম জয়ের স্বাদ পেল টাইগাররাসংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারে কোন আইনগত বাঁধা নেই : সিইসি ‘ডেইলি লিডারশিপ’-এ প্রতিবেদন-বিশ্বের সাদাসিধে জীবনযাপনকারী রাষ্ট্রপ্রধানদের ১জন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুইম্যাচ সিরিজে প্রথম দিনে মোমিনুলের সেঞ্চুরি : বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩১৫আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনীকে সিইসি’র ১২ দফা নির্দেশনা যথাযথ মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালিতযথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপিত বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখের স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেসা’র ইন্তেকালওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বন্ধ্যাত্ব ঘোচানোর মিশনে নামছে টাইগাররা আজ পবিত্র ঈদ-ই মিলাদুন্নবী (সা.) : রাষ্টপতি ও প্রধানমন্ত্রী’র পৃথক বাণীবিদেশি টিভি চ্যানেলে দেশিপণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ রাজধানীতে ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ট্রাফিক বিভাগের অভিযানআগামী বুধবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) : পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালা
  • সাগর পথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় নারী ও শিশুসহ ৬৭ জন রোহিঙ্গা উদ্ধারআদায় করা হচ্ছে বাড়তি ভাড়া : বাস টিকিটের জন্য হাহাকার বাড়ছে সৌম্য-মোসাদ্দেকের বিধ্বংসী ব্যাটিং : ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০৫৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আজ মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিননিরপেক্ষভাবে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের প্রতি সিইসি’র নির্দেশ৬টি সংসদীয় আসনের সবকটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে : ইসি সচিবওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম জয়ের স্বাদ পেল টাইগাররাসংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারে কোন আইনগত বাঁধা নেই : সিইসি ‘ডেইলি লিডারশিপ’-এ প্রতিবেদন-বিশ্বের সাদাসিধে জীবনযাপনকারী রাষ্ট্রপ্রধানদের ১জন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুইম্যাচ সিরিজে প্রথম দিনে মোমিনুলের সেঞ্চুরি : বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩১৫আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনীকে সিইসি’র ১২ দফা নির্দেশনা যথাযথ মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালিতযথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপিত বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখের স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেসা’র ইন্তেকালওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বন্ধ্যাত্ব ঘোচানোর মিশনে নামছে টাইগাররা আজ পবিত্র ঈদ-ই মিলাদুন্নবী (সা.) : রাষ্টপতি ও প্রধানমন্ত্রী’র পৃথক বাণীবিদেশি টিভি চ্যানেলে দেশিপণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ রাজধানীতে ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ট্রাফিক বিভাগের অভিযানআগামী বুধবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) : পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালা
উপরে