প্রকাশ : ০৩ মে, ২০১৭ ০০:৩৯:২৪
কক্সবাজারের এক সার্ফিং কন্যার সমুদ্র জয়
বাংলাদেশ বাণী, ফরিদুল মোস্তফা খান, কক্সবাজার থেকে : ফাতেমা আক্তার। সমুদ্র পাড়ে জন্ম হলেও ঢেউয়ের গর্জন শুনলে ভয় পেত সে। মা-বাবাও পারতপক্ষে মেয়েকে পানির কাছে নিতে চাইতেন না। আর এখন পানির সঙ্গে তার সখ্য! দিনের বেশির ভাগ সময় কাটে সমুদ্রে। লোনা পানিতে সার্ফিং করে বেড়ায় সে। এখানেই শেষ নয় তার কাহিনি, ফেব্রুয়ারিতে কক্সবাজার সৈকতে অনুষ্ঠিত জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ফাতেমা।

গত ১৭ ও ১৮ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্টে প্রথম জাতীয় ক্লাব কাপ সার্ফিং টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় পর্যায়ের এই প্রতিযোগিতায় বয়সে বড় ও প্রশিক্ষিত মেয়েদের টপকিয়ে নারী ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়নের মুকুট ছিনিয়ে নেয় এই ছোট্ট ফাতেমা। সার্ফিং প্রতিযোগিতায় এটাই তার প্রথম অংশগ্রহণ, তাতেই চ্যাম্পিয়ন। সবার চোখে এখন সে সার্ফিংয়ের ‘বিস্ময়’। ফাতেমারও ইচ্ছা সার্ফিংয়ে নিয়ে আরও এগিয়ে যাওয়ার।

ফাতেমাদের বাড়ি দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে। জীবিকার তাগিদে বাবা ফকির আহমদ পরিবার নিয়ে চলে এসেছেন কক্সবাজার শহরে। এখন থাকছে শহরতলীর কলাতলী গ্রামে। কলাতলী সৈকতের একটি হোটেলের পাশে পান দোকান করে সংসার চালান বাবা। চার সন্তানের মধ্যে ফাতেমা আক্তার তৃতীয়। পড়ছে প্রথম শ্রেণিতে।
ফাতেমার সার্ফিংয়ের হাতেখড়ি ২০১৬ সালের মে মাসে। সমুদ্র সৈকতের কলাতলীর ওয়েব ফাইটার সার্ফিং ক্লাবের মাধ্যমে সে পানিতে নামে। ভয় কাটিয়ে শুরু থেকেই সফলতার স্বাক্ষর রেখে চলছে সে।  ওই ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও সার্ফার সাইফুল্লাহ সিফাত শোনালেন ফাতেমাকে সার্ফিংয়ে নিয়ে আসার গল্প।

তিনি বলেন, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে যে মেয়েরা সার্ফিং করে তাদের অধিকাংশই সৈকতের ভ্রাম্যমাণ হকার। শামুক-ঝিনুক দিয়ে তৈরি রকমারি পণ্য ভ্রমণে আসা পর্যটকেদের কাছে বিক্রি করাই তাদের মূল কাজ। পড়াশোনা করে না, সবাই গরিব ঘরের সন্তান। সংসারের হাল টানতে ফেরি করে তারা। এদের কেউ কেউ সার্ফিংয়ে এলেও অভাবের কারণে স্থায়ী হতে পারে না। তবে ফাতেমা এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। তাকে স্কুল থেকে সরাসরি সার্ফিংয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। সে পড়াশোনার পর বাকি সময়টুকু সার্ফিং শিখছে।
সর্বশেষ সংবাদ
  • ট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘ
  • ট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘ
উপরে