প্রকাশ : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১১:৩১:৫৪
ফুলবাড়ীতে নিজের ভাতার টাকায় সমাজের সেবা করেন মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর
বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম, জাহাঙ্গীর আলম, কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি : ছোট পরিসরে করেও যে দেশের জন্য কিছু করা যায়, তার প্রমাণ করে দিলেন কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের নওদাবশ গ্রামের অবসর প্রাপ্ত পুলিশ কনস্টেবল ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান।

নিজের ভাতার যে সামন্যতম টাকা দিয়ে তিনি সমাজের অসহায় গরীব দু:খী ও অভাবী, দু:স্থ মানুষের পাশে দাড়িয়ে সবার মন জয় করেছেন। তিনি ১৯৭১ সালে মে মাসে মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করেন। ভারতের দার্জিলিং মুজিব নগর ক্যাম্পে ২১দিন ট্রেনিং দিয়ে লালমনিরহাটের বুড়িমারী, বড়খাতা, বাউরাসহ বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযুুদ্ধ করেন। যুদ্ধে তার বডি নং ৮০/২৪। সম্মুখ সমরে তিনি বীরত্বের পরিচয় দেন। দেশ স্বাধীন হলে নিজ গ্রামে ফিরে আসেন।

১৯৮০ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিয়ে ২০০৩ সালে অবসর গ্রহন করেন। চাকুরী হতে অবসরের পর সমাজ সেবা মুলক কাজে জড়িয়ে পড়েন। এখন তিনি তার নিজ গ্রামে ও ৫নং ওয়ার্ডে প্রথম কাজ শুরু করেন। এলাকার সচেতন জনগনকে সাথে নিয়ে নিজের গ্রামটিকে জুয়া ও মাদক মুক্ত করতে সক্ষম হন। গত বোরো মৌসুমে প্রচন্ড খরার সময় তিনি ৭০ টাকা (লিটার) দরে ডিজেল ক্রয় করেন ১৩ মন এবং তা ২৮ টাকা প্রতি লিটারে ভুর্তকী দিয়ে ৫২ টাকায় গরীব ও অভাবী কৃষকদের মাঝে বিতরন করেন।

এবার পূঁজা ও ঈদ উপলক্ষে ৮০ জন দু:স্থ বিধবা হিন্দু মুসলিম মহিলার প্রত্যেকে ১০০টাকা করে বিতরন করেন। এ ছাড়া আরও পথিকদের বিশ্রামের জন্য ৫নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন রাস্তার মোডে ৩টি বিশ্রাগার নির্মান করেছেন। তার স্বপ্ন এই গ্রামটিকে একটি আদর্শ ও মডেল গ্রাম হিসাবে গড়ে তোলার জন্য সবার সহযোগীতা কামনা করেন। এত কিছু কাজের বিনিময়ে তিনি কারো কাছে কোন দিন হাত পাতেননি। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি মানুষের কাজ করতে চান।

বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুরের কাজ খুবই ক্ষুদ্র পরিষরে সীমাবদ্ধ হলেও সামজের সকল মানুষের জন্য তা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে চিরদিন। তার মত আমরা যদি প্রতিটি মানুষ সমাজের জন্য কিছুনা কিছু করি, তাহলে তা দেশের উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখবে। এমনটাই প্রত্যাশা  করেন সমাজের সচেতন মহল।

বাংলাদেশ বাণী/কাসা/ডেস্ক/নি.প্রতি/জাহাঙ্গীর/কুড়িগ্রাম/২৪/১২/২০১৫. ১১:৩০ (পিএম) ঘ.  
সর্বশেষ সংবাদ
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
উপরে