প্রকাশ : ১০ এপ্রিল, ২০১৬ ১৩:৪১:৪৩
নড়াইল থেকে হারিয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী গ্রাম বাংলার চিরচেনা গরু দৌড় প্রতিযোগিতা
বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি : নড়াইল থেকে হারিয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী গ্রাম বাংলার চিরচেনা খেলা গরু দৌড় প্রতিযোগিতা এখন আর চোখে পড়ে না, তেমনি গ্রাম বাংলার একটি জনপ্রিয় যান গরুর গাড়ি আর চোখে পড়েনা আগের মত। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে গাড়িয়াল পেশাও। এখন গ্রাম-গঞ্জে আগের মতো চোখে পড়েনা গরুর গাড়ি।
এক সময় নড়াইলের বিভিন্ন উপজেলায় ঐতিহ্যবাহী ওই বাহনের সরগরম অস্তিত্ব ছিল। আমাদের নড়াইল প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়ে পাঠানো তথ্য ও ছবির ভিত্তিতে জানা যায়। সর্বত্র ছিল গরুর গাড়ির কদর।কি বিয়ে, কি অন্য কোন উৎসব গরুর গাড়ি ছাড়া কল্পনাই করা যেত না। কাল ভেদে গ্রামীন মেঁঠো পথে গরুর গাড়ির চোখে না পড়লেও মাঝে মধ্যে দেখা মেলে কিছুটা মহিষের গাড়ির। ঐতিহ্যবাহী ওই গাড়িটি টানছে ধান-চাল কিংবা ভাড়ি মালামাল।
নড়াইল জেলাতেও এক সময় গরুর গাড়ী চলতো প্রতিনিয়ত। কিন্তু, এখন প্রত্যন্ত এই জনপদেও হারিয়ে যাচ্ছে গরুর গাড়ী। মাঝে-মধ্যে এলাকার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে দু-একটি গরুর গাড়ী চোখে পড়ে। কিন্তু এগুলোর অবস্থাও এখন জরাজীর্ণ। আধুনিক সভ্যতায় এতিহ্যবাহী গরুর গাড়ি হারিয়ে যেতে বসেছে। এ কারণে শহরের ছেলে-মেয়েরা তো দূরের কথা, বর্তমানে গ্রামের ছেলে মেয়েরাও গরুর গাড়ি যানবাহনটির সাথে পরিচিত নয়। হবখালী ইউনিয়নের করিম জম্মাদার নামের এক বয়োবৃদ্ধ জানান, আগে বিয়ে বাড়ি বা মালামাল পরিবহনে গরুর গাড়ি ছিল একমাত্র ভরসা। বিশেষ করে বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে আমাদের এলাকার কুড়িঢোপ মাঠে ভিবিন্ন এলাক থেকে বিভিন্ন সাজে সাজানো বিভিন্ন রকমের গরু। অঞ্চলে হাওরের ধান ও খড়-কুটো পরিবহনে গরুর গাড়ির ভূমিকা ছিল অপরিসীম। গরুর গলায় ঘন্টা লাগিয়ে ছই উঠিয়ে এসব গরুর গাড়ি বিয়ে বাড়িতে নেয়া হত। কার গাড়ি আগে যাবে তা নিয়েও ছিল বিশেষ প্রতিযোগিতা।  গ্রামের অবস্থাসম্পন্ন লোকজন ও গৃহস্থরা গরু গাড়ি ব্যবহার করতেন। কখনও কখনও তা আবার ভাড়ায় দিতেন । তারা বলেন, এখন আর গরুর গাড়ি নেই। গরুর গাড়ি এখন শুধুই স্মৃতি। যান্ত্রিক সভ্যতার যুগে এসে সেই জনপ্রিয় গরুর গাড়ি এখন বিলুপ্ত পথে।

বাংলাদেশ বাণী/কাসা/ডেস্ক/নি.প্রতি/উজ্জ্বল/নড়াইল/১০/০৪/২০১৬. ০১:৪০ (পিএম) ঘ.
সর্বশেষ সংবাদ
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
উপরে