প্রকাশ : ০৮ জুন, ২০১৬ ২৩:৩৮:৪৯
নড়াইলে আর ঢেকির তালে কোমর দোলেনা বাংলার নারীদের
বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম, উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি : ঢেকি নিয়ে অনেক কবি সাহিত্যিক অনেক কবিতা, গল্প লিখেছেন।  ঢেকির গুণ সম্পর্কে প্রবাদ বাক্য বাক্যও রচনা করেছেন গূনিজনেরা। “ঢেকি স্বর্গে গেলেও নাকি  ধান ভাঙ্গে”।  কিন্তু আজ তা চোখেই পড়ে না। হাতে গোনা কিছু কৃষকদের বাড়িতে ঢেকি চোখে পড়লেও আজ আর তার ব্যবহার নেই। তেমনি  নড়াইল জেলার বিভিন্ন উপজেলার প্রত্যান্ত গ্রামগুলোতে কালের আবর্তে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঢেকি আজ বিলুপ্তির পথে। আধুনিকতার ছোয়ায় দিন দিন ঢেকির কদরও কমে যাচ্ছে। সেই সাথে  গ্রাম বাংলার কৃষকদের বাড়ি থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী ঢেকিতে ধান, চাল ভানা। অথচ, প্রাচীন কাল থেকেই গ্রামের গৃহবধুরা ধান ভানার জন্য ব্যবহার করতেন কোন গাছের গুড়ি দিয়ে তৈরী করা ঢেকিতে এবং  এই  ঢেকিতে ভানা প্রথম চাল দিয়েই প্রায় প্রতিটি গ্রামে চলত নবান্ন উৎসব। কিন্তু বর্তমান সময়ে আধুনিকতার ছোয়া লাগায় এই প্রথাও বিলুপ্তির পথে। এখন মানুষ ধান, চালের আটা, চিড়া,  ভাঙ্গানোর জন্য বৈদ্যুতিক মিলের উপর নির্ভর করছে। কেননা, কম খরচ, কম সময়, কম শ্রমে এই মিলে কাজ করতে পারছেন। তাই ঢেকির উপর থেকে মানুষের নির্ভরশীলতা কমেছে। তাই অনেকেই আশংখা করছেন, এমন এক সময় আসবে যে গ্রাম বাংলার কৃষকদের বাড়িতে আর ঢেকি দেখা যাবে না এবং আগামী প্রজন্মের কাছে এই ঐতিহ্যবাহী ঢেকি শুধু কাল্পনিক জগতের এক গল্প হিসাবে  ঠাই পাবে। সেই সাথে কালের আবর্তে হারিয়ে যাবে শত বছরের এই ঐতিহ্যবাহী ঢেকি।

বাংলাদেশ বাণী/কাসা/ডেস্ক/নি.প্রতি/উজ্জ্বল/নড়াইল/০৮/০৬/২০১৬. ১১:৩৫ (পিএম) ঘ.
সর্বশেষ সংবাদ
  • ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ : বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি, সোমবার শাহবাগে ‘আনন্দ উৎসব ও স্মৃতিচারণ’ আজ বসছে দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন বঙ্গবন্ধু'র ৭ মার্চের ভাষণ : ২৫ নভেম্বর দেশব্যাপী আনন্দ শোভাযাত্রা দ. কোরিয়ার যুদ্ধজাহাজ মার্কিন বিমানবাহী রণতরীর যৌথ সামরিক মহড়ায় যোগ দেবেঢাকা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘কাস্টমস এন্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিস’ চালু২০২৪ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুত পৌঁছে দেয়া হবে : বানিজ্যমন্ত্রীরোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়া নিশ্চিত করতে যুক্তরাজ্যের সহযোগীতা চাইলো ঢাকা খুলনা-কলকাতা চলাচলকারী মৈত্রী ট্রেনের আজ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন
  • ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ : বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি, সোমবার শাহবাগে ‘আনন্দ উৎসব ও স্মৃতিচারণ’ আজ বসছে দশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন বঙ্গবন্ধু'র ৭ মার্চের ভাষণ : ২৫ নভেম্বর দেশব্যাপী আনন্দ শোভাযাত্রা দ. কোরিয়ার যুদ্ধজাহাজ মার্কিন বিমানবাহী রণতরীর যৌথ সামরিক মহড়ায় যোগ দেবেঢাকা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘কাস্টমস এন্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিস’ চালু২০২৪ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুত পৌঁছে দেয়া হবে : বানিজ্যমন্ত্রীরোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়া নিশ্চিত করতে যুক্তরাজ্যের সহযোগীতা চাইলো ঢাকা খুলনা-কলকাতা চলাচলকারী মৈত্রী ট্রেনের আজ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন
উপরে