প্রকাশ : ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৬:৩১:১৫
সুন্দরবনে নোনা পানির কুমির গণনার কাজ শুরু হয়েছে
বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম, এস এম রাজ, বাগরেহাট জেলা প্রতিনিধি : সুন্দরবনে শুরু হয়েছে নোনা পানির কুমির গণনা। রোববার বিকালে বাগেরহাটের মংলা উপজেলার ফরস্টে ঘাট এলাকায় খুলনা র্সাকেলের বন সংরক্ষক জহির উদ্দিন আহম্মেদ আনুষ্ঠানিকভাবে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় বেসরকারি বন্যপ্রাণী গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রির্সাচ ইন ন্যাচারাল রিসোর্সেস অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ‘ক্যারিনাম’ কুমির গণনার এ কাজ করছে। উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- খুলনা অঞ্চলের বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) জাহিদুল কবির, সুন্দরবন র্পূব বন বিভাগের বিভাগীয় র্কমর্কতা (ডিএফও) সাইদুল ইসলাম, পশ্চিম বিভাগের বিভাগীয় র্কমর্কতা (ডিএফও) সাইদ আলী ও ক্যারিনাম’র নির্বাহী প্রধান এস এম এ রশীদ। বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগরে (ডিএফও) জাহিদুল কবির বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বন বিভাগ ও ক্যারিনাম এই জরিপ কাজ শুরু করেছে।

বিশ্ব ব্যাংকের আর্থিক সহযোগিতায় চারটি দলে বিভক্ত হয়ে পুরো ফেব্র“য়ারি মাস জুড়ে চলবে এ কুমির গণনার কাজ। ১৯৮৫ সালের গণনা অনুযায়ী সুন্দরবনে দেড়শ থেকে দুইশ’ কুমির রয়েছে বলে বলা হতো। তবে ওই সংখ্যাও প্রকৃত পক্ষে বাস্তব সম্মত নয়, বলে মনে করেন তিনি। জাহিদুল কবির বলেন, ইতোর্পূবে বিক্ষিপ্ত ভাবে কুমির গণনার কিছু কাজ হলেও তা থেকে সুন্দরবনে কুমিরের সংখ্যা সম্পর্কে প্রকৃত কোনো ধারণা পাওয়া পায়নি।

বিশেষজ্ঞদের মতে উপকূলে লবণাক্ততা বৃিদ্ধ, জলবায়ু পরির্বতনসহ নানা কারণে গোটা সুন্দরবনের ওপরই এর প্রভাব পড়েছে। এরই মধ্যে দেশে বিপন্ন হয়েছে মিঠা পানির কুমির। অনান্য বন্যপ্রাণীর মতো হুমকিতে নোনা পানির কুমিরও। এই গণনা শেষে কুমিরের প্রকৃত সংখ্যা জানা গেলে, তা রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া যাবে। সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা (ডিএফও) সাইদুল ইসলাম জানান, সুন্দরবনের কোন কোন এলাকায় কুমির বেশি অবস্থান করে, তা জেনে সংরক্ষণের উদ্দেশে এই গণনার কাজ চালানো হচ্ছে। কুমিরের বংশ বিস্তার ও জীবনযাত্রার হুমকি সনাক্ত করার পর তা মোকাবেলায় সুন্দরবন বিভাগ ব্যবস্থা নেবে।

বাংলাদেশ বাণী/কাসা/ডেস্ক/নি.প্রতি/রাজ/বাগেরহাট/০১/০২/২০১৬. ০৪:৩০ (পিএম) ঘ.    
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
  • জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জোরালো সমর্থন রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জনকে ১ দিনের রিমান্ড বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে : সমাবেশে বক্তারা গেইল-ম্যাককালামের ব্যর্থতায় কুমিল্লার কাছে রংপুরের পরাজয়রাবির অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার : নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটেনিআজ নাগরিক সমাবেশে : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফিরে পাবে একাত্তরের ৭ মার্চের আবহমিয়ানমার কর্তৃপক্ষের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা বন্ধে জাতিসংঘের আহবান‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে’টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে ২৬ কোটি ডলার দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন জোটসংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণ আইন সংশোধনের খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসিজিম্বাবুয়ের সেনা কর্মকর্তারা অভ্যুত্থানের কথা অস্বীকার করেছেনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নেয়নি : সিইসিআজ ভয়াল ১৫ নভেম্বর : স্বজন হারাদের কাঁন্না থামেনি আজও মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যমান চিনি আইন রহিতের সিদ্ধান্তমহানগরী ঢাকাকে ‘সেফনগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদশম জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশন ১০ কার্য দিবস চলবেস্থানীয় সরকারের অধীন দেশের ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণবিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না : খালেদা জিয়া
উপরে