প্রকাশ : ০৩ মে, ২০১৬ ২০:২৫:৪৭
আপনার সন্তানের খোঁজ রাখছেন তো?
জিয়াউর রহমান : একটা কথা আছে, শহরে সন্তান পালন করা সহজ কিন্তু মানুষ করা কঠিন । কথাটির তাৎপর্য ভাবতে গেলে আমাদের অনেক গভীরে যেতে হবে । একটা ছোট শিশু যখন জন্ম গ্রহন করে তখন আপন বলতে শুধু মাকেই সে চিনে । আস্তে আস্তে সে বড় হয়, সেই সাথে পরিবারের বাকি মানুষদের সে চিনতে থাকে । এভাবে শিশু থেকে কৈশোর, তারপর যৌবনে পদার্পন করে । তার এই বেড়ে উঠার পথে সে সমাজের বিভিন্ন মানষের সাথে মিশে নানান বিষয় শিখে থাকে । তার এই বেড়ে উঠার একেকটা ধাপে সে একেক রকম পরিস্থিতির মুখোমুখি হয় । তবে সকল পরিস্থিতিতে সে যাই শিখা গ্রহন করুক না কেন তার শৈশবে তার পরিবারের কাছ থেকে সে যে শিখাটা গ্রহন করে থাকে সেটাই সে পরবর্তিতে বেশি কাজে লাগায় । এক্ষেত্রে তারপরিবার যদি তাকে ভালো কিছু শেখায় তাহলে পরবর্তিতে সে  খারাপ কাজের মধ্যেও তার শৈশবের ভাল শিখাটাকে কাজে লাগাতে চায় ।  
বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাবা ও মা উভয়েই কর্মজীবী হয় । কারন ছেলে মেয়েদের উজ্জল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তারা উদ্ধিগ্ন থাকে । তাই সন্তানদের যাতে কখনো কোন অভাবে পড়তে না হয় সেজন্য পিতামাতা সর্বদাই সচেষ্ট থাকে । কিন্তু এত কিছুর মাঝে সন্তানের লালন পালন করছে কে? কাজের লোক ?  
একটি শিশুর সবচেয়ে কাছের মানুষ হলো তার বাবা মা এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্য । কিন্তু বুজ হওয়ার পর থেকে শিশুটি দেখে আসছে তাকে লালন পালন করছে কাজের লোক । বাবা মা অফিস শেষ করে রাত করে বাসায় আসে আবার সকালে চলে যায় । মায়ের আদর, বাবার ভালবাসা আর তাই ছেলেটির পাওয়া হয়ে উঠেনা ।
এভাবে চলতে চলতে যখন সন্তান বড় হয় তখন তার একাকিত্ব মোচনের জন্য বন্ধু বান্ধব, আড্ডা, ইন্টারনেটে ডুবে থাকে । সে তার ইচ্ছা মত সব কিছুই করতে পারে কারন তাকে বাধা দেওয়ার মত কেউ থাকেনা । আর লাগামহীন ঘোড়া যেমন একসময় তার মালিককেও চিনেনা তেমনি খারাপ বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে এই সন্তানের খারাপ হতেও বেশি সময় লাগেনা ।  
কাদের সন্তান বিপদগামী বেশি হয় সেই প্রশ্নটা তোলাই থাক । আমি শুধু কয়েকটা কথা বলতে চাই । গ্রামের একটা মেয়ে অথবা একটা ছেলে বাড়িতে বলে স্কুলে গেলো । সে স্কুল থেকে আগেই চলে আসলো অথবা সে স্কুলে যাওয়ার নাম করে কোথাও ঘুরতে গেলো । ভেবে দেখুন, সে যেখানেই ঘুরতে যাক, ঐ এলাকায় তাকে চিনে এমন কেউ থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয় । কারন এই গ্রাম সেই গ্রামে অনেকের আত্নীয়স্বজন থাকে । তাদের মধ্যে যে কেউই তাকে দেখে চিনে ফেলতে পারে । তাই বুজে শুনে কোন মেয়ে বা ছেলে এমন  করবেনা । এবার ভাবুন, শহরে একটা মেয়ে বা ছেলে যখন স্কুল বা কলেজে গেলো  তখন সে বাসার গেইটের বাইরের চলে আসার পরই মুক্ত । কারন হয়তো তার বাসার আশেপাশে কিছু লোক তাকে চিনলেও তাদের চেনাজানা সেই বাসার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ।  তাই তারা ইচ্ছা মত যেখানে খুশি যেতে পারে । এখন আপনার সন্তান যদি তার বয়ফ্রেন্ডের সাথে বা গার্লফ্রেন্ডের সাথে কোথাও গিয়ে সময় কাটিয়ে আসে  আপনি কি সেটা বুঝতে পারবেন  ? কারন আপনি নিজেই তো জানেন না  আপনার সন্তান সাধারনত ক্লাস শেষে  কখন বাসায় ফিরে। অফিস শেষে বাসায় পৌছে দেখেন আপনার সন্তান বাড়িতেই আছে । দেখে একটা সস্তির নি:শ্বাষ ফেলেন । কিন্তু একবারো কি জানতে চেয়েছেন সারাদিন সে কি করেছে, কোথায় গিয়েছে, কার সাথে মিশেছে? আর ইন্টারনেটের বদৌলতে পর্ন জগতের সবকিছু এখন মোবাইলেই পাওয়া যাচ্ছে । এতে কি হচ্ছে ? আপনার সন্তান সেসব দেখে দেখে আকৃষ্ট হয়ে পড়ছে । যার পরিনাম হতে পারে ভয়াবহ ।  
কয়েকমাস আগে একটা সংবাদ প্রকাশ হয়েছিলো, প্রেমিকার বাবার কাছে চাদা দাবী, না দিলে গোপন ভিডিও ফাঁস । অনেক মেয়ে এমন বিভ্রতকর পরিস্থিতিতে পরে করছে আত্নহত্যা । ভেবে দেখুন এই কাজের রাস্তা কিন্তু আপনারই তৈরি করে দেওয়া । সন্তানদের খোজ খবর না রেখে  তাদের বানিয়েছেন বিপথগামী । ফলে তারা খারাপ বন্ধুদের পাল্লায় পরে যা খুশি তাই করে বেড়াচ্ছে । তাহলে আপনার টাকা পয়সা কি আপনার সন্তানের নিরাপত্তার জন্য যথেষ্ট ছিলো নাকি আপনার আদর ও শ্বাসনের দরকার ছিলো?  
এবার অন্তত নজর দিন আপনার সন্তানের প্রতি । কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কার সাথে মিশে, ঠিক মত বাসায় ফিরে কি না, স্কুলে নিয়মিত যাচ্ছে কিনা   এসব খোজ খবর রাখুন ।  তাহলে হয়তো আর কোন বখাটে যুবক/বিপদগামী তরুনীর জন্ম হবেনা আমাদের সমাজে ।
লেখা : সাংবাদিক জিয়াউর রহমান
সর্বশেষ সংবাদ
  • বিএনপির সঙ্গে কোন রাজনৈতিক সমঝোতা নাকচ করে দিলেন প্রধানমন্ত্রীট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
  • বিএনপির সঙ্গে কোন রাজনৈতিক সমঝোতা নাকচ করে দিলেন প্রধানমন্ত্রীট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
উপরে