প্রকাশ : ১২ মে, ২০১৬ ০০:০৯:০৯
আন্তজাতিক নার্সিং দিবস
॥ সাইদুর রহমান সাইদুল ॥ মানব সেবায় অনন্য দায়িত্ব পালনকারী সেবিকাদের স্বীকৃতি ও সন্মান প্রদর্শনের দিন হলো  "   আন্তজাতিক নার্স দিবস"। প্রতি বছর মে মাসের বার তারিখে আন্তজাতিক নার্সিং দিবস পালিত হয়। ১৯৬৫ সাল থেকে  এই দিবসটি পালিত হয় । বাংলাদেশেও এই দিবসটি ১৯৭৪ সাল থেকে  সরকারী ও বেসরকারি ভাবে পালিত হচ্ছে ।    আধুনিক নার্সিং এর প্রবর্তক মহীয়সী সেবিকা ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলের সেবা কর্মের প্রতি শ্রদ্ধা ও সন্মান জানিয়ে তাঁর জন্মদিন ১২ মে আন্তজাতিক নার্স দিবস হিসাবে পালন করা হয় । এবারের নার্স দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় হলো
" A force for change: Improving health systems' resillience."
তিনি ১৮২০ সালে ১২ মে ইতালীর ফ্লোরেন্স শহরে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন । নাইটিংগেলকে আধুনিক নার্সিংয়ের প্রবর্তক বলা  হয় ।
নার্সিং একটা সেবামূলক পেশা । বিশ্বের হাজারোও পেশার ভিড়ে এই পেশাটি এখন দিনে দিনে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পাচ্ছে । বিশ্বের প্রতিটি দেশেই নার্সের চাহিদা রয়েছে । সেবিকা মানেই মনে সাদা,  পোষাকে সাদা আচরন ও কর্মে সাদা । সবকিছুতেই যেন সাদার সমাহার । শান্তির প্রতীক এই সাদাকে তাঁরা মনে, মননে ধারন করে জীবন - যৌবনকে উৎসর্গ করেন সাদা ভুবনে ।
সেবাই তাঁদের মূল ধর্ম, সেবাই তাঁদের ব্রত । রাত নেই, দিন নেই সংসার,  পরিবার, সন্তানের মায়াকান্না তাঁদের সেবাধর্মী মনের কাছে অবহেলিত ও তুচ্ছ। সন্তানের প্রাপ্য ভালবাসা টুকু দিতে ব্যর্থ হচ্ছেন সাদা পোষাকের নারীরা । কিন্তু তাঁরা কি প্রাপ্য সন্মানী পাচ্ছেন ?
নার্সিং পেশার পথটা অতীতে শুধু অমসৃণ ছিলনা, ছিল কাঁটায় ভরপুর । এ পেশার গ্রহণযোগ্যতা ছিল শূন্যের কোটায় । সমাজপতিরা, ধর্মান্ধরা  নার্সিং পেশাকে ভালো চোখে দেখতেননা । বরং এই মহৎ পেশার শুভ্রতাকে বিনষ্ট ও কলঙ্কীত করার জন্য বিভিন্ন সময় অভিনব অপপ্রচার চালিয়েছেন । কিন্তু যেখানে মনুষ্য সেবার মতো মহৎ উদ্দেশ্য বিরাজমান, তার কন্ঠরোধ করা অথবা তার চলার পথকে প্রতিহত করার বিপক্ষে স্বয়ং বিধাতাই ছিলেন । যারফলে নার্সিং পেশা সকল প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতাকে উপেক্ষা করে,  তার অভিষ্ট লক্ষের দিকে প্রবাহমান । সমাজ এখন আর তাঁদেরকে আড় চোখে না ।
বর্তমানে নার্সিং পেশায় জড়িত মানুষগুলো বিভিন্ন ভাবে শোষিত ও বঞ্চিত হচ্ছেন । যাঁরা সরকারী চাকরী পেয়েছেন তাঁরা কিছুটা স্বস্তির নিশ্বাস নিতে পারবেন । বাকীরা আছেন  অতিকষ্টে অথবা বৈষম্যের চরম বেত্রাঘাত প্রতিনিয়ত সহ্য করতে হচ্ছে ।  বেসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, ব্যক্তি মালিকাধীন ক্লিনিক / হাসপাতাল গুলি তাদের মন - মর্জি অনুয়াযী নার্সদের বেতন - ভাতাদি প্রদান করে থাকেন । এ দেশের রোগীরা বেশী সেবা পাবার আশায় ক্লিনিক কিংবা হাসপাতালে ভর্তি হন । অসুস্থ ব্যক্তির ঔষধের পাশাপাশি সেবাও অতিজরুরী । কিন্তু উন্নত বা মানসম্মত সেবা তখনেই  ক্লিনিক মালিক দিতে পারবেন,  যখন সেবা দানকারী প্রতিটি ব্যক্তিকে পরিশ্রমের সঠিক ও বাস্তব সন্মত মূল্য দিতে সক্ষম হবেন । নার্সেরা বাড়ি - গাড়ী চায়না । সমাজে সন্মানজনক ভাবে খেয়ে পরে বাঁচতে চায়। ক্লিনিক কতৃপক্ষ নার্সদের কম দিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে চান । অন্যদিকে নার্সেরা বাধ্য হয়ে অন্য একটা ক্লিনিকে ডিউটি করেন। যারফলে সেবা থাকে দৌড়ের উপরে  ।  ক্লিনিক / হাসপাতালের মালিকদের নার্সদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে হবে।
আমাদের দেশে অনেকগুলি সেবা খাত আছে । তারমধ্য স্ব্যাস্হ হচ্ছে অন্যতম। আমাদের চিকিৎসা খাতের প্রতি প্রথমে দেশের মানুষের আস্হা ফিরিয়ে আনতে হবে । বর্তমানে আমাদের দেশের বহু মানুষ চিকিৎসা সেবা নেবার জন্য বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন । কারন একটাই এ দেশে মানসন্মত চিকিৎসা ও সেবা পাচ্ছেননা । কিন্তু চিকিৎসা শাস্ত্রে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে তা বলা নিতান্তই ভূল হবে । এখানে শুধু অবিশ্বাসের ঝাঁঝালো গন্ধ আর সঠিক সেবা না পাবার অপ্রতিকার যুক্ত অভিযোগ । এর ফাঁকে বিদেশে চিকিৎসার নামে চলে যাচ্ছে দেশের প্রচুর অর্থ ।
বাংলাদেশে নার্সিং ইনস্টিটিউট ৪৪ টি। বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলের তথ্যমতে ডিপ্লোমা নার্স, বিএসসি নার্স মিডওয়াইফারি সবমিলে বেকার আছেন ২১৬৭৪ জন । বাংলাদেশ নার্সিংকাউন্সিলের
হিসাবে বর্তমানে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে এক লাখ ৮০ হাজার নার্সের প্রয়োজন। অন্যদিকে দেশের  নার্সিং ইনস্টিটিউট গুলি থেকে বছরে মাত্র এক হাজারের মতো নার্স পাস করে বের হচ্ছেন।
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবমতে, রোগীর সেবা প্রদানকালে একজন চিকিৎসকের সহায়তার জন্য ৩ জন নার্সের প্রয়োজন। সর্বোচ্চ ৪ জন রোগীর জন্য ১ জন নার্স থাকার কথা। Icu, Ccu তে প্রতি বেডে একজন নার্স প্রয়োজন । কিন্তু বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোর অবস্থা এর বিপরীত।সরকারী হাসপাতালে একজন নার্স ৫০ - ৬০ জন রোগীর সেবার জন্য নিয়োজিত থাকেন। বেসরকারি ক্লিনিকে এর চিত্র পর্যাপ্ত রোগী না থাকার জন্য সামান্য কম । সেক্ষেত্রে রোগীরা সেবা তো পাবেন জলছিটার মতো । দেশের সব হাসপাতালে চলছে নার্স সংকট । পাশাপাশি নার্সদের আবাসন সংকটও  অন্তহীন ।  ক্লিনিক / হাসপাতালে  নাইট ডিউটি শুরু হয় রাত আটটা থেকে নয়টার ভিতর । নার্সিং পেশায় প্রধানত নারীরাই দখল করে আছেন । এরজন্য নিরাপদ আবাসন থাকা বাধ্যতা মূলক থাকতে হবে। নতুবা তাঁরা কর্মস্থলে যাবার নিরাপত্তা দিবে কে ?  এই পচনধরা সমাজে যেখানে ঘরেই নিরাপত্তা নেই নারীদের । রাতে রাস্তায় কে দিবে নিরাপত্তা?
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবুর রহমান  ১৯৭২ সালে পিজি হাসপাতালে এক বক্তৃতায় বলেছিলেন , দেশে দক্ষ নার্স তৈরী করতে হবে  । বাংলাদেশে দক্ষ নার্স  আছে বলেই বিশ্বের ১৩ টি দেশে প্রায় ৬৫০০ জন  নার্স কর্মরত আছেন।   ব্যাচ,  মেধা ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নার্স নিয়োগের জন্য  নার্সেরা আন্দোলনরত ছিলেন ।  অবশেষে  আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে (মে দিবস) হাজার হাজার বেকার নার্সদের মুখে হাসি ফোটালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মে মাসের এক তারিখে নার্সের দাবি মেনে নিলেন ।ইতিপূর্বে  তিনি নার্সদের দ্বিতীয় শ্রেনীর মর্যাদা প্রদান  ও বয়স বৃদ্ধি করেন।  নার্সদের দাবি মেনে নেওয়ার জন্য মাননীয়  প্রধান মন্ত্রীকে  সাধুবাদ জানাই। ব্যাচ, মেধা ও  জ্যেষ্ঠাতার ভিত্তিতে নিয়োগ না হলে,  রমরমা নিয়োগ বানিজ্য হতো।
বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলকে আরও শক্তিশালী ও দুর্নীতিমুক্ত করতে হবে  । তবেই পাওয়া যাবে মেধা ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে  নিয়োগের প্রকৃত ফসল ।

লেখক : কলামিস্ট, আগ্রাবাদ, চট্রগ্রাম।
সর্বশেষ সংবাদ
  • ট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘ
  • ট্রাম্প হচ্ছেন ‘আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নবাগত দুষ্টু ব্যক্তি’: ইরানের প্রেসিডেন্টমিয়ানমারের সিত্তুয়েতে রোহিঙ্গাদের জন্য রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলাজলি আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার চার্জশিট -‘সঠিক জবানবন্দি উপস্থাপন করতে পারেনি পুলিশ’রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা ২৬২ কোটি ৩ লাখ টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ‌‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আপনাদের ঐক্য প্রদর্শন করুন’ : ওআইসিকে প্রধানমন্ত্রীপৌর অবকাঠামো উন্নয়নে ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে এডিবিরোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস ট্রাম্পেররোহিঙ্গা ইস্যুতে মুখ খুললেন : আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা আহ্বান সুকি'র রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধে এটাই সুচি’র শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব দক্ষিণ-পশ্চিম লন্ডনে পাতাল রেলে বিস্ফোরণ : পুলিশের দাবী সন্ত্রাসী হামলাজাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্ক যাচ্ছেনমিয়ানমারের আকাশসীমা লংঘনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশমানুষকে খাদ্য নিয়ে কষ্ট পেতে দেব না : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীরাখাইন রাজ্যের বর্তমান সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগ প্রকাশমানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীএ সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে-রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান তাদেরকেই করতে হবে : সংসদকে প্রধানমন্ত্রীমন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতিসংঘ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদনওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আজ আস্তানার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেননির্বাচনকে প্রভাবিত করার রাজনীতি বিএনপি'র হাত ধরেই শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমিয়ানমারের চলমান সহিংসতায় ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে : জাতিসংঘ
উপরে