প্রকাশ : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ০১:৩৪:০৫
অষ্টধরের বাসিন্দাদের দু’শ বছর আগের স্বপ্ন পুরণ হবে তো ?
ইউসুফ আলী মন্ডল : বাংলাদেশের ইতিহাস নদী মাতৃক ভ্রমপুুত্র বিশাল তার জলরাশী আর এই বিশাল ভ্রমপুত্রকে ঘিরে ঘরে ওঠছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমি। এ ধরনের তলদেশ থেকে জেগে ওঠা তেরটি চর বিস্তৃত হয়ে ৯ কিলোমিটার জায়গায় অবস্থিত। এলাকার নবীন প্রবীন সমন্বয়ে রোজ বিকেলে নদীর পাড়ে ভ্রমণ করে হাজার হাজার পর্যটক যেখানে মিলন মেলায় পরিনত হয় প্রাকৃতিক পরিবেশ। আর এই শুভাসৌন্দর্য বর্ধিত নদীই হলো ব্রমপুুত্র নদী। যার বুক চিরে এখন জেগে ওঠা চরে বসবাস করছে হাজার হাজার মানুষ।
কিন্তু চরবাসীরা এখন যোগাযোগে পিছনে পড়ে রয়েছেন। তারা জানান, এই দিক দিয়ে একটি মাত্র ব্রীজ তৈরি হলেই মাত্র ৪০ মিনিটেই ময়মনসিংহ বিভাগের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হত। তাদের নকলা সদর হয়ে ফুলপুর দিয়ে ময়মনসিংহ যেতে সময় লাগে প্রায় ২ ঘন্টা ভাড়া বাবদ খরচ হয় ১শ ৫০ টাকা। আর ভ্রমপুত্র নদীর অষ্ট্রধর অংশে একটি ব্রীজ ২শ মিটার নির্মিত হলে তারা ৮০ কিলোমিটারের জায়গায় ৪০ কিলোমিটার পথে ৩০ টাকা খরচেই যেতে পারতেন।
যোগাযোগের উত্তম সময়ে এলাকাবাসী জানান, তাদের পিয়ারপুর হয়ে ময়মনসিংহ ঢাকা, মুক্তাগাছা, টাঙ্গাইল যাতায়াতের জন্য ঘাটপারে ব্রীজ নির্মাণ একান্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। তা না হলে প্রতিবছর ভাঙ্গনে তাদের স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, বাড়ীঘরসহ ফসলী জমি নিশ্চিহ্ন  হয়ে যাচ্ছে।
৮নং ইউনিয়নের ভোট স্কুুল বলে খ্যাত একটি প্রাইমারি স্কুল একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ৭০ বছরের একটি পুরোনা মসজিদ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যাচ্ছে। ভাঙ্গন শুরু হয়ে ৯ কিলোমিটার বিস্তৃত হয়ে পড়ে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নকলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সাবেক আওয়ামীলীগ সভাপতি গোলাম রব্বানী বলেন, এখানে নেই কোন সামাজিক অবস্থান। নিরাপত্তা ও জনকল্যানে নাগরিকদের কোনো সুযোগ সুবিধা যদি এসকল থাকতো তাহলে এলাকাটিকে পর্যটক এলাকা হিসাবে গড়ে তোলা সম্ভব হতো।
প্রধান শিক্ষক এমরান হোসেন ফটু বলেন, ভাঙ্গন রোধ করা না গেলেও সামাজিক বিনোদনের কেন্দ্র হিসেবে জায়গাটি বিশেষ উপযোগী ও পরিবেশ বান্ধব। ভিআইপিদের বাড়ীর ঐ অঞ্চলে হলেও এখনো কোনো সড়ক যোগাযোগ ও পাকা রাস্তা হয়নি। শেরপুর জেলার নকলা ও নালিতাবাড়ী উন্নয়নে মতিয়া চৌধুরীর সহযোগীতা রয়েছে ব্যাপক ভাবে তাই উক্ত অষ্টধর এলাকায় একটি ব্র্রীজ নির্মান করে ২শ বছরের অবস্থা ফিরিয়ে আনবেন বলে আশা করছেন অনেকেই। মুক্তাগাছার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম নকলা চাকুরি করেন। তিনি বলেন, সড়কটি হোক এটা আমার প্রানের দাবী। মন্ত্রী মহোদয় সড়কটি উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন বলে আশা করছি। এই জলরাসিতে একসময় ছিল জোয়ার ভাটা দেশী জাতীয় পুষ্টি সমৃদ্ধ মাছের ছিল অভয়ারন্য আজ তা নেই। আছে শুধু জলরাসী আর বিশাল পর্যটক ভুমি।
পূর্ব দিকে ৬ কিলোমিটার পশ্চিমে ১০ কিলোমিটার দক্ষিনে ২ কিলোমিটার আয়তনে প্রায় ৫ শ’ একর ভূমি রয়েছে। ঐখানকার চাষীরা নদীশুকিয়ে গেলে জেগে ওঠা চরে শুধু বাদামের চাষ করে থাকেন। অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আজহার বলেন, আমাদের দেশের একশতাংশ জমি পতিত নেই। অথচ এই্ বিশাল চরে শত শত একর জমি পতিত রয়েছে যা কোনো কাজে লাগানো হচ্ছে না। সরকারী উদ্যোগে এখানে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করা হলে বৎসরে সরকারের রাজস্ব আদায় হতো একশ কোটি টাকা। নদীর পাড়ের বাসিন্দা আব্্দুল মোতালেব বলেন, বহু বছর যাবৎ ভাঙ্গন শুরু হয়েছে রক্ষা করতে এখনও কেউ এগিয়ে আসেনি। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক সিয়াবুল বাদশা বলেন, এদিক দিয়ে বাইপাস সড়ক নির্মাণ করলে লক্ষ লক্ষ লোকের যাতায়াত সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। খরচ ও কমবে অনেক। ইউনিয়ন আওয়মীলীগ সভাপতি এনামুল হক জিন্নাহ বলেন, এখান দিয়ে রেল লাইন পরিকল্পনার কথা ছিল কিন্তু শুনেছি সরকারি ব্যয় হবে ৫ থেকে ৬ শ’ কোটি টাকা যে কারণে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে বিলম্ব হচ্ছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, রেল লাইন বাস্তবায়নে পরিকল্পনা নেই।
১৬টি চরে বসবাসরত ৩ লাখ লোকের এই নিরাপদ ভূমি সরকারি উদ্যোগে কোনো আবাসন তৈরি হলে নবগঠিত ময়মনসিংহ বিভাগের সাথে ২ কোটি লোকের ৩৫টি উপজেলার ২৬টি পৌরসভার সবচেয়ে বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন এ অঞ্চলের মানুষেরা এবং এ পথেই জামালপুর শেরপুর দু’জেলার বাসিন্দারা অনায়াসে যাতায়াত করতে পারবেন। আসুন সমন্বিত উদ্যোগ নেই এবং বিশাল এ পতিত ভূমিকে কাজে লাগাই। বেকারদের কর্মমূখী হিসেবে গড়ে তুলি।

লেখক : ইউসুফ আলী মন্ডল, সাংবাদিক ও লেখক, শেরপুর।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জঙ্গিবাদ কোন প্রভাব ফেলতে পারবে না : আইজিপি সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ৩৫ বছর করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকারবাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে ৫টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরএনটিআরসিএ'র নতুন চেয়ারম্যান পদে আশফাক হোসেনকে নিয়োগ দিয়েছে সরকারমানুষের স্বচ্ছতা বাড়ায় প্রতিবছর দেশে পূজা মণ্ডপ বাড়ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী“দেশে কোন সংখ্যালঘু নেই” : র‌্যাবের মহাপরিচালক নির্বাচন কমিশনারদের মধ্যে-মতবিরোধ থাকলেও জাতীয় নির্বাচন পরিচালনায় প্রভাব পড়বে না : সিইসিবাসাবাড়ি'র গ্যাসের মূল্য আপাতত বাড়ছে না : বিইআরসিঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরের জন্য দেড় বিঘা জমি প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী‘পদ্মাসেতু রেল সংযোগ নির্মাণ প্রকল্পের’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রীবাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা আজ শুরু সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে‘তিতলি’'র প্রভাবে ভারি বৃষ্টিপাতের আভাস : ভূমিধসের আশঙ্কাপ্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ভিডিও কনফারেন্সে নড়াইলের ‘শেখ রাসেল সেতু’ উদ্বোধনভারতের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র আঘাতে ৮ জনের প্রাণহানি : ক্রমশ: দুর্বল হচ্ছেএকুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় : বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদন্ড ❏ তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনইতিহাসের বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলার মামলা ❏ বিচারের ঐতিহাসিক রায় আজসামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘গুজব শনাক্তকরণ সেল’ গঠন করেছে সরকারবিশ্ব বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ২৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজদুর্যোগ কবলিত ইন্দোনেশিয়া লম্বা হচ্ছে লাশের মিছিল
  • আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জঙ্গিবাদ কোন প্রভাব ফেলতে পারবে না : আইজিপি সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ৩৫ বছর করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকারবাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে ৫টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরএনটিআরসিএ'র নতুন চেয়ারম্যান পদে আশফাক হোসেনকে নিয়োগ দিয়েছে সরকারমানুষের স্বচ্ছতা বাড়ায় প্রতিবছর দেশে পূজা মণ্ডপ বাড়ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী“দেশে কোন সংখ্যালঘু নেই” : র‌্যাবের মহাপরিচালক নির্বাচন কমিশনারদের মধ্যে-মতবিরোধ থাকলেও জাতীয় নির্বাচন পরিচালনায় প্রভাব পড়বে না : সিইসিবাসাবাড়ি'র গ্যাসের মূল্য আপাতত বাড়ছে না : বিইআরসিঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরের জন্য দেড় বিঘা জমি প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী‘পদ্মাসেতু রেল সংযোগ নির্মাণ প্রকল্পের’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রীবাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা আজ শুরু সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে‘তিতলি’'র প্রভাবে ভারি বৃষ্টিপাতের আভাস : ভূমিধসের আশঙ্কাপ্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ভিডিও কনফারেন্সে নড়াইলের ‘শেখ রাসেল সেতু’ উদ্বোধনভারতের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র আঘাতে ৮ জনের প্রাণহানি : ক্রমশ: দুর্বল হচ্ছেএকুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় : বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদন্ড ❏ তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনইতিহাসের বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলার মামলা ❏ বিচারের ঐতিহাসিক রায় আজসামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘গুজব শনাক্তকরণ সেল’ গঠন করেছে সরকারবিশ্ব বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ২৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজদুর্যোগ কবলিত ইন্দোনেশিয়া লম্বা হচ্ছে লাশের মিছিল
উপরে