প্রকাশ : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ০১:৩৪:০৫
অষ্টধরের বাসিন্দাদের দু’শ বছর আগের স্বপ্ন পুরণ হবে তো ?
ইউসুফ আলী মন্ডল : বাংলাদেশের ইতিহাস নদী মাতৃক ভ্রমপুুত্র বিশাল তার জলরাশী আর এই বিশাল ভ্রমপুত্রকে ঘিরে ঘরে ওঠছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমি। এ ধরনের তলদেশ থেকে জেগে ওঠা তেরটি চর বিস্তৃত হয়ে ৯ কিলোমিটার জায়গায় অবস্থিত। এলাকার নবীন প্রবীন সমন্বয়ে রোজ বিকেলে নদীর পাড়ে ভ্রমণ করে হাজার হাজার পর্যটক যেখানে মিলন মেলায় পরিনত হয় প্রাকৃতিক পরিবেশ। আর এই শুভাসৌন্দর্য বর্ধিত নদীই হলো ব্রমপুুত্র নদী। যার বুক চিরে এখন জেগে ওঠা চরে বসবাস করছে হাজার হাজার মানুষ।
কিন্তু চরবাসীরা এখন যোগাযোগে পিছনে পড়ে রয়েছেন। তারা জানান, এই দিক দিয়ে একটি মাত্র ব্রীজ তৈরি হলেই মাত্র ৪০ মিনিটেই ময়মনসিংহ বিভাগের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হত। তাদের নকলা সদর হয়ে ফুলপুর দিয়ে ময়মনসিংহ যেতে সময় লাগে প্রায় ২ ঘন্টা ভাড়া বাবদ খরচ হয় ১শ ৫০ টাকা। আর ভ্রমপুত্র নদীর অষ্ট্রধর অংশে একটি ব্রীজ ২শ মিটার নির্মিত হলে তারা ৮০ কিলোমিটারের জায়গায় ৪০ কিলোমিটার পথে ৩০ টাকা খরচেই যেতে পারতেন।
যোগাযোগের উত্তম সময়ে এলাকাবাসী জানান, তাদের পিয়ারপুর হয়ে ময়মনসিংহ ঢাকা, মুক্তাগাছা, টাঙ্গাইল যাতায়াতের জন্য ঘাটপারে ব্রীজ নির্মাণ একান্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। তা না হলে প্রতিবছর ভাঙ্গনে তাদের স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, বাড়ীঘরসহ ফসলী জমি নিশ্চিহ্ন  হয়ে যাচ্ছে।
৮নং ইউনিয়নের ভোট স্কুুল বলে খ্যাত একটি প্রাইমারি স্কুল একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ৭০ বছরের একটি পুরোনা মসজিদ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যাচ্ছে। ভাঙ্গন শুরু হয়ে ৯ কিলোমিটার বিস্তৃত হয়ে পড়ে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নকলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সাবেক আওয়ামীলীগ সভাপতি গোলাম রব্বানী বলেন, এখানে নেই কোন সামাজিক অবস্থান। নিরাপত্তা ও জনকল্যানে নাগরিকদের কোনো সুযোগ সুবিধা যদি এসকল থাকতো তাহলে এলাকাটিকে পর্যটক এলাকা হিসাবে গড়ে তোলা সম্ভব হতো।
প্রধান শিক্ষক এমরান হোসেন ফটু বলেন, ভাঙ্গন রোধ করা না গেলেও সামাজিক বিনোদনের কেন্দ্র হিসেবে জায়গাটি বিশেষ উপযোগী ও পরিবেশ বান্ধব। ভিআইপিদের বাড়ীর ঐ অঞ্চলে হলেও এখনো কোনো সড়ক যোগাযোগ ও পাকা রাস্তা হয়নি। শেরপুর জেলার নকলা ও নালিতাবাড়ী উন্নয়নে মতিয়া চৌধুরীর সহযোগীতা রয়েছে ব্যাপক ভাবে তাই উক্ত অষ্টধর এলাকায় একটি ব্র্রীজ নির্মান করে ২শ বছরের অবস্থা ফিরিয়ে আনবেন বলে আশা করছেন অনেকেই। মুক্তাগাছার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম নকলা চাকুরি করেন। তিনি বলেন, সড়কটি হোক এটা আমার প্রানের দাবী। মন্ত্রী মহোদয় সড়কটি উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন বলে আশা করছি। এই জলরাসিতে একসময় ছিল জোয়ার ভাটা দেশী জাতীয় পুষ্টি সমৃদ্ধ মাছের ছিল অভয়ারন্য আজ তা নেই। আছে শুধু জলরাসী আর বিশাল পর্যটক ভুমি।
পূর্ব দিকে ৬ কিলোমিটার পশ্চিমে ১০ কিলোমিটার দক্ষিনে ২ কিলোমিটার আয়তনে প্রায় ৫ শ’ একর ভূমি রয়েছে। ঐখানকার চাষীরা নদীশুকিয়ে গেলে জেগে ওঠা চরে শুধু বাদামের চাষ করে থাকেন। অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আজহার বলেন, আমাদের দেশের একশতাংশ জমি পতিত নেই। অথচ এই্ বিশাল চরে শত শত একর জমি পতিত রয়েছে যা কোনো কাজে লাগানো হচ্ছে না। সরকারী উদ্যোগে এখানে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করা হলে বৎসরে সরকারের রাজস্ব আদায় হতো একশ কোটি টাকা। নদীর পাড়ের বাসিন্দা আব্্দুল মোতালেব বলেন, বহু বছর যাবৎ ভাঙ্গন শুরু হয়েছে রক্ষা করতে এখনও কেউ এগিয়ে আসেনি। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক সিয়াবুল বাদশা বলেন, এদিক দিয়ে বাইপাস সড়ক নির্মাণ করলে লক্ষ লক্ষ লোকের যাতায়াত সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। খরচ ও কমবে অনেক। ইউনিয়ন আওয়মীলীগ সভাপতি এনামুল হক জিন্নাহ বলেন, এখান দিয়ে রেল লাইন পরিকল্পনার কথা ছিল কিন্তু শুনেছি সরকারি ব্যয় হবে ৫ থেকে ৬ শ’ কোটি টাকা যে কারণে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে বিলম্ব হচ্ছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, রেল লাইন বাস্তবায়নে পরিকল্পনা নেই।
১৬টি চরে বসবাসরত ৩ লাখ লোকের এই নিরাপদ ভূমি সরকারি উদ্যোগে কোনো আবাসন তৈরি হলে নবগঠিত ময়মনসিংহ বিভাগের সাথে ২ কোটি লোকের ৩৫টি উপজেলার ২৬টি পৌরসভার সবচেয়ে বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন এ অঞ্চলের মানুষেরা এবং এ পথেই জামালপুর শেরপুর দু’জেলার বাসিন্দারা অনায়াসে যাতায়াত করতে পারবেন। আসুন সমন্বিত উদ্যোগ নেই এবং বিশাল এ পতিত ভূমিকে কাজে লাগাই। বেকারদের কর্মমূখী হিসেবে গড়ে তুলি।

লেখক : ইউসুফ আলী মন্ডল, সাংবাদিক ও লেখক, শেরপুর।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • ঢাকা উত্তর সিটি'র উপ-নির্বাচনে আদালতের ৩ মাসের স্থগিতাদেশসুন্দরবনের ৩ কুখ্যাত জলদস্যুবাহিনীর প্রধানসহ ৩৮ জনের আত্মসমর্পণজাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণ : ভবিষ্যতে বাংলাদেশে জাতীয় ঐক্যের দাবি প্রধানমন্ত্রী'ররাজধানী'র জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের সফল অভিযান : ৩ মৃতদেহ ও বিস্ফোরক উদ্ধারপদোন্নতি পেলেন বঙ্গবন্ধু'র খুনিদের গ্রেফতারকারী প্রথম পুলিশ অফিসারবিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীআম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বরাজধানীতে তীব্র গ্যাস সংকট : জনমনে ক্ষোভ জঙ্গি ও অন্যান্য অপরাধ দমনে পুলিশ বাহিনী সফল হয়েছে : আইজিপিঅর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি'র সভায় ১৩টি প্রকল্প অনুমোদনপুলিশকে আমি সব সময় আইনের রক্ষকের ভূমিকায় দেখতে চাই : প্রধানমন্ত্রীফারমার্স ব্যাংক কর্তৃক-জলবায়ু ট্রাস্ট তহবিলসহ আমানতকারীদের অর্থ ফেরত না দেয়ায় টিআইবি’র উদ্বেগসুন্দরগঞ্জের আসনটি ছিনিয়ে নিয়েছে আওয়ামী লীগ : এইচ. এম. এরশাদজঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে পুলিশের সাফল্য দেশে-বিদেশে প্রশংসিত হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ এ মাসেই শুরু হচ্ছেযশোরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সন্ত্রাসী পালসার বাবু নিহতদেশজুড়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ উৎসব২০১৭'র বিদায় : নতুন বছর ২০১৮ কে বরণ করে নিল জাতিঅগ্রগতি ৫০ শতাংশের বেশি ॥ যথা সময়ে শেষ হবে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ : কাদেররাবির স্নাতক প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু ২১ জানুয়ারি
  • ঢাকা উত্তর সিটি'র উপ-নির্বাচনে আদালতের ৩ মাসের স্থগিতাদেশসুন্দরবনের ৩ কুখ্যাত জলদস্যুবাহিনীর প্রধানসহ ৩৮ জনের আত্মসমর্পণজাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণ : ভবিষ্যতে বাংলাদেশে জাতীয় ঐক্যের দাবি প্রধানমন্ত্রী'ররাজধানী'র জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের সফল অভিযান : ৩ মৃতদেহ ও বিস্ফোরক উদ্ধারপদোন্নতি পেলেন বঙ্গবন্ধু'র খুনিদের গ্রেফতারকারী প্রথম পুলিশ অফিসারবিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীআম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বরাজধানীতে তীব্র গ্যাস সংকট : জনমনে ক্ষোভ জঙ্গি ও অন্যান্য অপরাধ দমনে পুলিশ বাহিনী সফল হয়েছে : আইজিপিঅর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি'র সভায় ১৩টি প্রকল্প অনুমোদনপুলিশকে আমি সব সময় আইনের রক্ষকের ভূমিকায় দেখতে চাই : প্রধানমন্ত্রীফারমার্স ব্যাংক কর্তৃক-জলবায়ু ট্রাস্ট তহবিলসহ আমানতকারীদের অর্থ ফেরত না দেয়ায় টিআইবি’র উদ্বেগসুন্দরগঞ্জের আসনটি ছিনিয়ে নিয়েছে আওয়ামী লীগ : এইচ. এম. এরশাদজঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে পুলিশের সাফল্য দেশে-বিদেশে প্রশংসিত হয়েছে : প্রধানমন্ত্রীমাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ এ মাসেই শুরু হচ্ছেযশোরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সন্ত্রাসী পালসার বাবু নিহতদেশজুড়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ উৎসব২০১৭'র বিদায় : নতুন বছর ২০১৮ কে বরণ করে নিল জাতিঅগ্রগতি ৫০ শতাংশের বেশি ॥ যথা সময়ে শেষ হবে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ : কাদেররাবির স্নাতক প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু ২১ জানুয়ারি
উপরে